কোনো রকমে রিয়ালের হার ঠেকালেন ভিনিসিয়াস
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৯ মে ২০২১ | ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

কোনো রকমে রিয়ালের হার ঠেকালেন ভিনিসিয়াস

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ০২, ২০২১

কোনো রকমে রিয়ালের হার ঠেকালেন ভিনিসিয়াস
রিয়াল মাদ্রিদের সামনে সুযোগ ছিল বার্সেলোনাকে টপকে লা লিগার পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বর স্থানটি পুর্নদখল করার। সুযোগ ছিল শীর্ষে থাকা অ্যাতলেতিকোর মাদ্রিদের সঙ্গে পয়েন্টের ব্যবধানটা ৩-এ নামিয়ে আনার। কিন্তু জিনেদিন জিদানের দল সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেনি। উল্টো নিজেদের ঘরের মাঠে রিয়াল পুড়েছে ড্র হতাশায়। রিয়াল সোসিয়েদাদের সঙ্গে ১-১ গোলের ড্র’টাও করেছে হারতে হারতে।

ম্যাচের ৮৯ মিনিট পর্যন্তও ১-০ গোলে পিছিয়ে ছিল রিয়াল। মৌসুমে লিগে ঘরের মাঠে রিয়ালের চতুর্থ হারকেই নিয়তি মনে হচ্ছিল। ঠিক তখনই গোল করে রিয়ালের হার ঠেকিয়েছেন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। দারুণ এক গোল করে ব্রাজিলিয়ান তরুণ হারতে থাকা রিয়ালকে এনে দিয়েছেন মূলবান একটা পয়েন্ট। যে পয়েন্টটির মাধ্যমে জিদানের দল ধরে ফেলেছে দুই নম্বরে থাকা বার্সেলোনাকে।

২৫ ম্যাচ শেষে বার্সা-রিয়াল, দুই দলেরই পয়েন্ট সমান ৫৩ করে। তবে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় বার্সেলোনার জায়গা দুই নম্বরে। রিয়াল তিন নম্বরে। তাদের চেয়ে এক ম্যাচ কম খেলেই শীর্ষে থাকা অ্যাতলেতিকোর পয়েন্ট ৫৮। মানে রিয়াল-বার্সার চেয়ে পূর্ণ ৫ পয়েন্টে এগিয়ে থাকার পাশাপাশি অ্যাতলেতিকোর হাতে একটি ম্যাচও বেশি আছে। যা স্পষ্ট করেই বলছে, এবারের লিগ শিরোপার দৌড়ে অ্যাতলেতিকো অনেকটাই এগিয়ে।

আগের দিন অ্যাতলেতিকো ও বার্সেলোনা, দুই দলই তুলে নেয় ২-০ গোলের জয়। দুই দলের জয়ই ছিল প্রতিপক্ষের মাঠে গিয়ে। সেখানে কাল রিয়াল খেলতে নেমেছিল নিজেদের মাঠে। কিন্তু নিজেদের মাঠই এবার জিদানের দলকে পোড়াচ্ছে বেশি। পুর্নিনির্মাণ এবং করোনার ক্যাম্প বসায় মূল স্টেডিয়াম এস্তাদিও সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে এবার খেলতে পারছে না রিয়াল। নিজেদের হোম ম্যাচগুলো রিয়াল খেলতে নিজেদেরই বিকল্প স্টেডিয়াম এস্তাদিও আলফ্রেডো ডি স্টেফানোতে। কিন্তু ছোট্ট এই স্টেডিয়ামকে বড় বেশি কাঁদাচ্ছে রিয়ালকে।

লিগে মৌসুমে ঘরের মাঠে খেলঅ ১২ ম্যাচের মধ্যে ৩টিতেই যেমন হারতে হয়েছে রিয়ালকে। কাল পুড়তে হলো ড্র হতাশাও। তবে শেষ পর্যন্ত ড্র করতে পারাটাও ছিল রিয়ালের জন্য স্বস্তির। দলেল প্রধান গোল-মেশিন করিম বেনজেমা এই ম্যাচটিও খেলতে পারেননি। তার অনুপস্থিতিতে কোচ জিদান শুরুর একাদশে আক্রমণ সাজান ইসকো, মার্কো এসেনসিও ও মারিয়ানো দিয়াজকে দিয়ে। কিন্তু এই ত্রয়ী দলকে গোল এনে দিতে ব্যর্থ হয়েছেন।

তাদের ব্যর্থতার ফায়দা তুলে সফরকারী রিয়াল সোসিয়েদাদই এগিয়ে যায় প্রথমে। ৫৫ মিনিটে সোসিয়েদাদকে এগিয়ে দেন পোর্টু। তিনি গোলটা করেন রিয়ালেরই সাবেক খেলোয়াড় মনরিয়ালের ক্রস থেকে হেড করে। তার আগে প্রথমার্ধ ছিল গোলশূন্য। তবে গোলশূন্য থাকলেও আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে প্রথমার্ধটা ছিল প্রানবন্ত আকর্ষণীয় ফুটবলের প্রদর্শনী।

দ্বিতীয়ার্ধেও মাঠের খেলাটা আকর্ষণীয়ই ছিল। তবে প্রথমার্ধের তুলনায় দুই দলের আক্রমণের ধারই খানিকটা কমে ছিল। তারপরও রিয়াল চেষ্টা করেছে গোল পরিশোধের। কিন্তু কিছুতেই ইসকো, এসেনসিও, মারিয়া ত্রয়ী কিছু করতে পারছিলেন না। বাধ্য হয়ে রিয়াল কোচ জিদান, আক্রমণভাগেই এই তিনজনকেই তুলে নিয়ে মাঠে নামিয়ে দেন নতুন তিনজনকে।

গত বুধবার আটালান্টার বিপক্ষে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোল’র প্রথম লেগেও ঠিক একই কাজই করেছিলেন জিদান। তিন ফরোয়ার্ডকে তুলে সেদিনও ফল পেয়েছিল। ফল পেয়েছে কালও। ইসকো, এসেনসিও, মারিয়ানো-ম্যাচের ৬১ মিনিটে এই তিনজনকে একসঙ্গে তুলে নিয়ে একসঙ্গে মাঠে নামিয়ে দেন ভিনিসিয়াস, রদ্রিগো ও হুগো দুরোকে। এতে রিয়ালের আক্রমণের ধার কিছুটা বাড়ে বটে। কিন্তু গোল আদায় করতে পারছিল না। অবশেষে ৮৯ মিনিটে দলকে সমতার স্বস্তি এনে দেন ভিনিসিয়াস।

ব্রাজিল তরুণ দলকে সমতায় ফিরিয়েছেনও নাটকীয়ভাবে। সোসিয়েদাদের বক্সের ভেতরে বদলি হুগো দুরোকে লক্ষ্য করে ক্রস করেন ভাসকুয়েজ। হুগো দুরো শট নেওয়ার জন্য পা চালিয়েছিলেনও। কিন্তু পা তার বলে লাগেনি! বলে পা লাগাতে পুরোপুরি ব্যর্থ হন রিয়ালের বি দলের এই তরুণ স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড। কিন্তু তার ঠিক পেছনেই ছিলেন আরেক বদলি ভিনিসিয়াস জুনিয়র। ব্রাজিল তারকা সুযোগটা কাজে লাগিয়েছেন দারুণভাবে। ডান পায়ের জোরালো শটে বল জড়িয়ে দিয়েছেন সোসিয়েদাদের জালে।

কেআর

 

আরও পড়ুন

আরও