খাবার অপচয় রোধ করার কিছু উপায়
Back to Top

ঢাকা, শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ | ৫ আষাঢ় ১৪২৮

খাবার অপচয় রোধ করার কিছু উপায়

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৫৫ অপরাহ্ণ, জুন ০৯, ২০২১

খাবার অপচয় রোধ করার কিছু উপায়
প্রয়োজনের থেকে বেশি খাদ্য সঞ্চয় করা এবং পরে তা অপচয় করা, আজ আমাদের স্বভাব হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই খাদ্যদ্রব্যের অপচয় বন্ধ করা আজ অত্যন্ত জরুরি। খাবার অপচয়ের ফলে, পরিবেশের ওপরও এর খারাপ প্রভাব পড়ছে। কারণ নষ্ট হওয়া খাবার এখানে সেখানে ফেলে দেওয়া হচ্ছে, সেগুলো পচে গিয়ে মিথেন গ্যাস উৎপন্ন করছে, যা পরিবেশের জন্য ভীষণই ক্ষতিকর। এটি দ্বিতীয় সবচেয়ে সাধারণ গ্রিনহাউস গ্যাস। তাই, আজ থেকে খাবার অপচয় করা বন্ধ করুন। এতে পরিবেশও বাঁচবে এবং আপনি অর্থ সঞ্চয়ও করতে পারবেন। তাহলে দেখে নেওয়া যাক, বাড়িতে খাদ্যের অপচয় বন্ধ করার কিছু টিপস।

যতটুকু দরকার ততটুকু রান্না করুন একসাথে অনেক রান্না না করে, যতটুকু দরকার ততটুকু রান্না করুন। এর ফলে খাদ্য অপচয় কম হবে এবং আর্থিক দিক থেকেও আপনি সাশ্রয়ী হতে পারবেন। 

এক্সপাইরি ডেট দেখে কিনুন খাবারের মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ার কারণে আমরা বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য ফেলে দিই, নষ্ট করি। তাই, খাবার যাতে নষ্ট না হয়, সেজন্য গ্রসারি শপিং-এর সময় প্রতিটি প্যাকেটের ওপর লেখা এক্সপাইরি ডেট দেখার অভ্যাস গড়ে তুলুন। প্রত্যেকটি জিনিসেরই একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ দেওয়া থাকে। এগুলো লক্ষ্য রাখুন এবং সময় থাকতে ব্যবহার করুন, ফলে অপচয় কম হবে এবং আর্থিক লোকসানও কমবে। 

ফল এবং শাকসবজি নষ্ট হওয়ার আগে ব্যবহার করুন ফল এবং শাকসবজি বেশিদিন ফেলে রাখলে পচে যায়, তাই ঘরে ফেলে না রেখে সেগুলো ব্যবহার করুন। বাড়িতে থাকা ফলগুলো নরম হয়ে গেলে, সেগুলো স্মুদি বা শেক বানিয়ে খেতে পারেন। এছাড়াও, রুপচর্চার কাজেও ব্যবহার করতে পারেন। আর সবজি যদি তার সতেজ ভাব হারাতে থাকে, তাহলে সেগুলো স্যুপ বানিয়ে খেতে পারেন। 

ফ্রিজের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখুন আজকালকার দিনে বেশিরভাগ খাদ্যদ্রব্যই আমরা ফ্রিজে রাখি, যাতে জিনিসগুলো ভালো থাকে। তাই ফ্রিজের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা অত্যন্ত জরুরি। খাদ্যদ্রব্যকে ফ্রেশ রাখার জন্য ১°- ৫° সেলসিয়াস হল আদর্শ তাপমাত্রা। ফ্রিজের তাপমাত্রা বেশি বেড়ে গেলে অনেক সময়ই খাদ্য নষ্ট হয়ে যেতে পারে। 

তালিকা অনুযায়ী কিনুন বাজারে গেলে অনেক সময়ই বিভিন্ন সরঞ্জাম দেখে আমাদের মন বিচলিত হয় এবং আমরা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করে ফেলি। এর ফলে শুধুমাত্র যে খাদ্যদ্রব্য অপচয় হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায় তাই নয়, পাশাপাশি অর্থও অপচয় হয়। তাই বাজারে যাওয়ার আগে, প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যের একটি তালিকা বানিয়ে নিন এবং সেই তালিকা অনুযায়ী খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করুন। তার থেকে বেশি কিছু কিনবেন না। 

সঠিকভাবে স্টোর করে রাখুন খাবার সঠিক জায়গায় স্টোর করুন, যা আপনার খাদ্যদ্রব্যকে দীর্ঘদিন পর্যন্ত ভালো রাখতে সহায়তা করবে, যেমন - পেঁয়াজ, রসুন, কলা, আলু, আপেল, এগুলো ঘরোয়া তাপমাত্রায় সবচেয়ে ভালো স্টোর করা যায়। 

পুরোনো খাবারগুলো আগে শেষ করুন মুদিখানা কেনাকাটা হয়ে গেলে সেগুলি ঠিকভাবে সাজান। গ্রসারি আইটেম হোক কিংবা অন্যান্য খাদ্যদ্রব্য, সর্বদা পুরোনো খাবারগুলো আগে শেষ করবেন, তারপর নতুন খাবারগুলোতে হাত দেবেন। এর ফলে খাদ্যদ্রব্যের মেয়াদ শেষ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কমবে, খাবার নষ্টও হবে না এবং খাদ্যের অপচয়ও কম হবে। সেরকমই, সদ্য কিনে আনা মুদিখানার জিনিসগুলো স্টোর করার সময়, পুরোনো মুদির জিনিসগুলো সামনের দিকে রাখুন এবং নতুন যেগুলো কিনে এনেছেন সেগুলো পেছনের দিকে রাখুন।

ওএস/ইসি
 

আরও পড়ুন

আরও