ভিটামিন বি-এর ঘাটতির হলেও স্বাদ-গন্ধ পাওয়া যায় না!
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১ | ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

ভিটামিন বি-এর ঘাটতির হলেও স্বাদ-গন্ধ পাওয়া যায় না!

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৫২ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৮, ২০২১

ভিটামিন বি-এর ঘাটতির হলেও স্বাদ-গন্ধ পাওয়া যায় না!
মানবদেহকে সুস্থ রাখতে প্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেল ইত্যাদির সঠিক সামঞ্জস্য প্রয়োজন। ভিটামিনের আবার অনেক ভাগ রযেছে। ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি থেকে শুরু করে আরও অনেক কিছু। ভিটামিন বি-এর আটটি ভাগের মধ্যে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন।
শরীরে এর অভাব দেখা দিলে শরীর ক্রমশ অসুস্থ হতে পারে। বয়স্কদের মধ্যে এই সমস্যা বেশ দেখা যেতে পারে। হাঁটাচলা, গাঁটে গাঁটে ব্যথা, সংবেদনশীলতা হারিয়ে যাওয়া ত্বকের রং হলুদ হয়ে যাওয়া বা শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা দেখা যায় তাদের। এই সমস্যাগুলি প্রধানত হয় ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতির কারণে হয়ে থাকে।

শারীরিক সমস্যা ছাড়া মানসিক অসুখও হতে পারে ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতির কারণে। এই কারণে হতাশা, বিড়ম্বনা এবং বিভ্রান্তি, স্মৃতিশক্তি হ্রাস, অসংলগ্নতা, স্বাদ এবং গন্ধের ক্ষতি সহ বেশ কয়েকটি সমস্যা হতে পারে। তাই গন্ধ বা স্বাদ পাচ্ছেন না বলে যে কেউ করোনাতেই আক্রান্ত হয়েছেন তেমন ভাবার কোনো কারণ নেই। শরীরের ভিটামিন বি ১২-এর অভাব হতে পারে।

শরীরে ভিটামিন বি ১২-র কী প্রয়োজন?

মানবদেহে ভিটামিন বি ১২-এর উপস্থিতি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এর সাহায্যে আমাদের শরীরের লোহিত রক্তকণিকা উৎপন্ন হয়। এছাড়াও স্নায়ু, ডিএনএ সহ একাধিক ক্ষেত্রে এটির গুরুত্ব অশেষ। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের শরীরে দিনে ২.৪ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন বি ১২-এর প্রয়োজন হয়। শরীরের মধ্যে এই ভিটামিন তৈরি হতে পারে না। খাবারের মাধ্যমে এটি শরীরের প্রবেশ করানো হয়।

অনেকের শরীরেই ভিটামিন বি ১২ পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রবেশ করতে পারে না। অনেকের শরীরের আবার পর্যাপ্ত ভিটামিন বি ১২ শোষণ করতে পারে না। ফলে শরীরে ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতি দেখা দেয়। এই সমস্যা প্রধানত দেখা দেয় বয়স্কদের।

ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতির কারণ

বিভিন্ন কারণে শরীরে এই ভিটামিনের অভাব দেখা দিতে পারে। তার মধ্যে দুটি অন্যতম কারণ হল নিরামিষ খাবার এবং ওজন কমানোর অপারেশন। গাছপালা, শাক-সবজি থেকে ভিটামিন বি12 পাওয়া যায় না। ডিম, মাংস, পোল্ট্রির খাবার, দুগ্ধজাত খাবার এবং প্রাণীর দেহ থেকে ভিটামিন বি ১২ সংগৃহীত হয়। সেকারণেই ভেগান বা কঠোর নিরামিষাশী যারা দানাশস্যও খান না তাদের শরীরেই ভিটামিন বি ১২ এর ঘাটতি দেখা দেয়। ভিটামিনের ঘাটতি মেটাতে এদের ওষুধ খেতে হয়। আবার যারা ওজন কমানোর জন্য অপারেশ করে থাকেন তাদের শরীরেও ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতি দেখা যায়। মূলত এই অপারেশনের কারণে শরীরের ভিটামিন বি ১২ শরীরে প্রবেশ করতে পারে না।

ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতির লক্ষণ

* ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতি হলে গাঁটে গাঁটে ব্যথা, সংবেদনশীলতা হারিয়ে যাওয়া, ত্বকের রং হলুদ হয়ে যাওয়া বা শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা দেখা যায়।
*হতাশা, বিড়ম্বনা, বিভ্রান্তি, স্মৃতিশক্তি হ্রাস, অসংলগ্নতা, স্বাদ এবং গন্ধের ক্ষতি সহ বেশ কয়েকটি সমস্যা হতে পারে।
*হাত-পা কাঁপা, অসাড়তার মতো সমস্যাও হয়।
*হাঁটাচলায় সমস্যা হয়। হাঁটার সময় ব্যালেন্স হারিয়ে যায়।
*রক্তাল্পতা বা অ্যানিমিয়া, জিভে ফোলাভাব এবং জ্বলুনি দেখা দেয়। শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে।
*রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে রোগ নির্ণয় সম্ভব। যাঁরা কঠোরভাবে নিরামিষাশী এবং ভেগান তাঁরা কিন্তু চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে নিয়মিত ভিটামিন বি ১২ পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত। রোগ তাড়াতাড়ি ধরা পড়লে স্নায়বিক এবং রক্তের রোগ প্রতিরোধ করা যায়।

শরীরের ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতি মেটানোর উপায়

*ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতি মেটানো যায় চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে নিয়মিত ওষুধ খেলে। মাল্টিভিটামিন থেকেও ভিটামিন বি ১২-এর ঘাটতি মেটানো সম্ভব।
*ভেগান বা নিরামষাশীদের দানা শস্য যেমন রুটি, মিলেট ইত্যাদি খাওয়া দরকার।
* ডিম, মাংস, পোল্ট্রির খাবার, দুগ্ধজাত খাবার এবং প্রাণীজাত খাদ্য মানবদেহে ভিটামিন বি ১২-ওর ঘাটতি পূরণ করে।

তবে সব কিছুরই পরেও মনে রাখবেন যে শরীরের কীসের প্রয়োজন বা কোন জিনিসের ঘাটতি মেটাতে হবে তা একমাত্র চিকিৎসকই সঠিকভাব বলতে পারে। তাই রোগের লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের কাছে যান। নিজে থেকে ডাক্তারি করতে যাবেন না। এতে হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। অযথা আতঙ্ক ছড়াবেন না। অবহেলা না করে সঠিক সময়ে চিকিৎসা কিংবা রোগ প্রতিরোধের চেষ্টা হলে যে কোনও রোগকেই নির্মূল করা সম্ভব। তাই সচেতন হন। সুস্থ থাকুন।

সূত্র; ES

এসকে
 

আরও পড়ুন

আরও