বাইশরশি জমিদার বাড়ি রক্ষার দাবি
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ১০ বৈশাখ ১৪২৮



বাইশরশি জমিদার বাড়ি রক্ষার দাবি

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ০৩, ২০২১

বাইশরশি জমিদার বাড়ি রক্ষার দাবি
ফরিদপুরের সদরপুরে বাইশরশি জমিদার বাড়ি সংরক্ষণের অভাবে হুমকির মুখে পড়েছে। সপ্তদশ শতকের বাড়িটি বিক্রি করে দেওয়ার পাঁয়তারা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বাড়িটি সংরক্ষণ করে পর্যটন কেন্দ্র ঘোষণার দাবিতে আন্দলনে নেমেছে ৩৪টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

ফরিদপুরে ১৭ শতকের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের অমলিন স্মৃতিবিজরিত বাইশরশি জমিদার বাড়ি। ৫০ একর জমির ওপর অবস্থিত জমিদার বাড়িটি। এর মধ্যে ১৮ একর জমি বিভিন্ন ব্যক্তি দখল করে ভোগ করে আসছে। বাড়িটির মধ্যে চৌদ্দটি দ্বিতল ভবন, তিনটি দৃষ্টিনন্দিত পূজামণ্ডপ, ৪টি শান বাঁধানো ঘাট, বাগানবাড়িসহ বিভিন্ন কারুকার্য নিদর্শন রয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার বাইশরশি জমিদারবাড়ির সামনে সদরপুর-পুকুরিয়া সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করে ৩৪টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও স্থানীয়রা। মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা ধ্বংসের হাত থেকে জমিদারবাড়িটি রক্ষা করে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের অধীনে নিয়ে সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ করে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন। মানববন্ধন শেষে সদরপুরের ইউএনও পূরবী গোলদারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন।

আন্দোলনকারীরা জমিদারবাড়ির চত্বরে ঢুকে মানব বলয় রচনা করে দীপ্তকণ্ঠে শপথ নেয়, 'দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে। আন্দোলন যতদিন চলবে, ততদিন রাস্তায় থাকব। আন্দোলনের বিজয় না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরে যাব না।'

সদরপুর সেফটোস সভাপতি মোঃ শামীম হাওলাদার জানান, শত বছরের ঐতিহ্যবাহী জমিদার বাড়িটি সংরক্ষন ও ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার্থে আমাদের এ মানববন্ধন। সরকারি ভাবে এ প্রতিষ্ঠানটির রক্ষনাবেক্ষণ ও পর্যটন কেন্দ্র করা হোক।

বাইশরশি জমিদার বাড়ির সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি চলাকালে এই আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য দেন সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম। তিনি বলেন, বাইশরশি জমিদারবাড়ি শুধু সদরপুরের নয়, সারাদেশের একটি ঐতিহ্য। এ ঐতিহ্য রক্ষা করতে যা যা প্রয়োজন, তা আমরা করব।

এই আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে আরও বক্তব্য দেন ভাঙ্গা কে এম কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মোশায়েদ হোসেন ঢালী, বাইশরশি উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য এনামুল হক ফকির, কাশিয়ানীর ইয়ার আলী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শহীদুল ইসলাম, ভাঙ্গা সিপিবির সদস্য প্রভাষ মালো, সংসদ উপনেতা সাজেদা চৌধুরীর সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী তৌহিদুর রহমান, কৃষক গোলাম হুসাইন প্রমুখ। বক্তাদের অভিযোগ, দুইশ বছরের পুরোনো জমিদারবাড়িটি রক্ষা না করে আজ বিক্রি করে দেওয়ার পাঁয়তারা চলছে।

একই দিন ফরিদপুরেও মানববন্ধন করে ৩৪টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। 'ফরিদপুরের সব স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনসহ বাংলাদেশের

বিভিন্ন ঐতিহ্যপ্রেমী সংগঠনে'র ব্যানারে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

এদিকে গত সোমবার রাত ৩টার দিকে এই আন্দোলনে সংহতি জানাতে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ট্রাভেলগ্রাম বাংলাদেশ, হিমাদ্রী ট্রাভেল, কানামাছি ভোঁ ভোঁ ও জাহাজী নামের চারটি ভ্রমণ ও পরিবেশবাদী সংগঠনের ১৬ জন সদস্য বাইশরশি জমিদারবাড়িতে আসেন। তারা জমিদারবাড়ির বিভিন্ন ঘর পরিস্কার করেন এবং বাড়ির চত্বরে মশাল প্রজ্বালন করেন।

সদরপুর সেফটোস সভাপতি শামীম হাওলাদার জানান, শত বছরের পুরোনো জমিদারবাড়িটি সংরক্ষণ ও ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার্থে আমাদের এই মানববন্ধন।

সদরপুরের ইউএনও পূরবী গোলদার বলেন, ওই সম্পত্তি 'ক' তালিকাভুক্ত অর্পিত সম্পত্তি। এটি এ অঞ্চলের জমিদারদের সবশেষ নিদর্শন। এটি বেহাত হয়ে গেলে এই এলাকায় বাইশরশি জমিদারদের কোনো অস্তিত্ব থাকবে না।

ইসি

 

আরও পড়ুন

আরও