পর্যটনে তুষারকে প্রাধান্য দিচ্ছে সিকিম
Back to Top

ঢাকা, সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১ | ৪ মাঘ ১৪২৭

পর্যটনে তুষারকে প্রাধান্য দিচ্ছে সিকিম

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১১, ২০২১

পর্যটনে তুষারকে প্রাধান্য দিচ্ছে সিকিম
দীর্ঘ লকডাউন। তারপর আনলক পর্ব। সারা বিশ্বের মতো ক্ষতিগ্রস্ত উত্তরবঙ্গ ও সিকিমের পর্যটনও। ইতিমধ্যেই দার্জিলিং পাহাড়ে পর্যটন সরকারিভাবে খুলে গিয়েছে। ডিসেম্বর পয়লা থেকে খুলে যাচ্ছে সিকিমও ফের আশায় বুক বাঁধছে পর্যটন মহল। তবে সরকারিভাবে পাহাড়ের জন্য এটি অফ সিজন। আর অফ সিজনে পর্যটক টানতে তুষার পর্যটনকে পাখির চোখ করেছেন ব্যবসায়ীরা।

সাধারণত ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে নির্দিষ্ট উচ্চতায় বরফ পড়া শুরু করে। জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে বরফে ঢাকা থাকে অনেক এলাকা। মার্চ পর্যন্ত এই তুষারপাত ঘটে। চলতি বছরে নভেম্বরের মাঝামাঝি সময় থেকেই বেশ কিছু এলাকায় তুষারপাত শুরু হয়ে গিয়েছে। ফলে ডিসেম্বরের শেষ থেকে বেশ কিছু এলাকা পর্যটকদের জন্য ‘দুর্গম’ বলে ঘোষণা করা হতে পারে। তার আগে পর্যন্ত তুষার পর্যটনকে কাজে লাগিয়ে দেশি পর্যটকদের আকর্ষণ করতে চাইছেন টুর অপারেটররা।

পর্যটকদের কাছে তুষারপাত দেখার জন্য সবচেয়ে পছন্দের ডেস্টিনেশন টাইগার হিল। তালিকায় দু’নম্বরে রয়েছে সান্দাকফু। তিন নম্বরে পূর্ব সিকিমের জুলুক, ছাঙ্গু, বাবা মন্দির। সবচেয়ে বেশি তুষারপাত এবং সবচেয়ে বেশি সময় ধরে তুষারপাত হলেও উত্তর সিকিমের লাচুং-লাচেন অগ্রাধিকার তালিকায় সবচেয়ে শেষে রয়েছে।

লাচুং, লাচেনের পারমিট জোগাড় করতে গ্যাংটকে গিয়ে রাত্রিবাস করতেই হয়। যাঁরা দু’তিন দিনের ছুটি নিয়ে আসেন, তাঁদের পক্ষে লাচুং কিংবা লাচেন ঘুরতে যাওয়া সম্ভব নয়। তাই এই ব্যবস্থা।

এখানে গত বছর থেকেই শীতকালীন পর্যটনে জোর দেওয়া হচ্ছিল। তাতে তুষারপাত বেশি হওয়া এলাকায় বাড়তি মনোযোগ আকর্ষণের একটা চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছে। কোন একটি বিষয়কে নির্দিষ্ট করে ব্র্যান্ডিং করে পর্যটক টানা গেলে তাতে আখেরে গোটা সার্কিটেরই লাভ। ফলে যাঁরা ঘুরতে যেতে চেয়ে খোঁজখবর করছেন, তাঁদের তুষারপাত সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোর বেশি করে তুলে ধরা হচ্ছে।

ওএস/ইসি

 

আরও পড়ুন

আরও