ময়মনসিংহের ‘শশীলজ’
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ১৩ কার্তিক ১৪২৮

ময়মনসিংহের ‘শশীলজ’

ময়মনসিংহের ‘শশীলজ’ ২:৩৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০২১

ময়মনসিংহের ‘শশীলজ’
প্রাচীন বাংলায় ছিল রাজা-মহারাজাদের রাজত্ব। সে সময় রাজা-মহারাজাগণ নিজেদের ও উত্তরাধিকারীদের বসবাসের জন্য নির্মাণ করেন দৃষ্টিনন্দন অনেক স্থাপনা। এমনই একটি প্রাচীন স্থাপনা শশীলজ। মূলত এটি একটি রাজপ্রাসাদ। ময়মনসিংহ শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত জমিদার শশীকান্ত আচার্য চৌধুরীর বাড়ি শশীলজ।
   
১৯০৫ সালে ৯ একর জমির উপর এই জমিদার বাড়িটি পুনঃনির্মাণ করেন তিনি। মুক্তাগাছা জমিদারির প্রতিষ্ঠাতা শ্রীকৃষ্ণ আচার্য চৌধুরীর তৃতীয় উত্তরপুরুষ রঘুনন্দন আচার্য চৌধুরী নিঃসন্তান ছিলেন। অথচ পিতৃতান্ত্রিক সমাজের সাংগঠনিক কাঠামো অনুযায়ী, সম্পত্তি সংরক্ষণে সক্ষম একটি পুত্রসন্তান ভীষণভাবে প্রয়োজন। তাই দত্তক পুত্র গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। গৌরীকান্ত আচার্য চৌধুরীকে দত্তক নিলেন রঘুনন্দন। মৃত্যুর আগে দত্তক পুত্রের হাতে জমিদারির ভার অর্পণ করেন।


জমিদার গৌরীকান্ত আচার্য চৌধুরীর প্রতিও সদয় ছিল না নিয়তি। সন্তানহীন অবস্থায় অকালপ্রয়াণ ঘটে তাঁর। গৌরীকান্তের বিধবা পত্নী বিমলা দেবী দত্তক নিলেন কাশীকান্তকে। কাশীকান্তের কপালও মন্দ ছিল ভীষণ। দীর্ঘ রোগযন্ত্রণায় ভুগে সন্তানহীন অবস্থায় পরলোকগমন করলেন তিনিও। তার বিধবা পত্নী লক্ষ্মী দেবী আচার্য চৌধুরানী পূর্বসূরিদের পথ অনুসরণ করে দত্তক নিলেন চন্দ্রকান্তকে। ভাগ্যের বিরুদ্ধাচরণে চন্দ্রকান্তও অতিদ্রুত পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন। তবে হাল ছাড়লেন না লক্ষ্মী দেবী। পুনরায় দত্তক নিলেন তিনি। দ্বিতীয় দত্তক পুত্রের পূর্বনাম পূর্ণচন্দ্র মজুমদার। কুলগুরুর সামনে মহাসমারোহে লক্ষ্মী দেবী নতুন নাম রাখলেন পুত্রের সূর্যকান্ত আচার্য চৌধুরী।