১৩ নম্বর জিতে ফেদেরারের ‘২০’ ছুঁলেন নাদাল
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২১ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

১৩ নম্বর জিতে ফেদেরারের ‘২০’ ছুঁলেন নাদাল

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০২০

১৩ নম্বর জিতে ফেদেরারের ‘২০’ ছুঁলেন নাদাল
রোঁলা গাঁরোর রাজা তিনি। নোভাক জোকোভিচের সাধ্য কি, রোঁলা গাঁরোয় গিয়ে রোঁলা গাঁরোর সেই ‘রাজা’ রাফায়েল নাদালকে হারায়। জোকোভিচ তা পারলেনও না। বরং জোকোভিচকে উড়িয়ে দিয়ে রাজা নাদালই নিজের একাধিপত্বের মর্যাদা রাখলেন রোঁলা গাঁরো। জোকোভিচকে সহজেই হারিয়ে ফ্রেঞ্চ ওপেনে নিজের ১৩তম শিরোপা জিতলেন নাদাল। সব মিলে যেটা তার ২০তম গ্র্যান্ডস্লাম শিরোপা। মানে, এর মাধ্যমে নাদাল ছুঁয়ে ফেললেন সর্বোচ্চ গ্রান্ডস্লাম জয়ী রজার ফেদেরারকে। ৩৯ বছর বয়সী ফেদেরার ও ৩৪ বছর বয়সী নাদাল, দুজনেরই এখন গ্র্যান্ডস্লাম শিরোপা সংখ্যা সমান ২০।

ফাইনালে মুখোমুখি বিশ্ব র্যা ঙ্কিংয়ের এক ও দুই নম্বরে থাকা জোকোভিচ ও নাদাল। সংগত কারণেই বিশ্ব টেনিসপ্রেমীরা আশায় বুক বেঁধেছিল রোঁলা গাঁরোয় স্নায়ুক্ষয়ী এক ফাইনাল দেখার আশায়। র্যা ঙ্কিংয়ের পাশাপাশি দুজনের অতীতের স্নায়ুক্ষয়ী সব লড়াই-ই টেনিসপ্রেমীদের চরম উত্তেজনাকর আগুনে এক ফাইনালের স্বপ্ন দেখাচ্ছিল। যে স্বপ্নের ভিড়ে সবাই হয়তো ভুলেই গিয়েছিল, এবারের লড়াইটা রোঁলা গাঁরোর লাল দূর্গে। লাল মাটির যে কোর্ট একান্তই রাফায়েল নাদালের দূর্গ। সেখানে নাদালের সামনে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতার দেয়াল তুলে দেওয়ার সামর্থ নেই!

ভূলে গেলেও নাদাল কোর্টে নামার পর থেকেই বিষয়টা মনে করিয়ে দিতে শুরু করেন। মাত্র ২ ঘণ্টা ৪১ মিনিটে লড়াই শেষ করে নাদাল আক্ষরিক অর্থেই দুনিয়াকে আরেকবার জানিয়ে দিলেন, অন্তত রোঁলা গাঁরোতে তার সঙ্গে কারো লড়াই হতে পারে না। রোঁলা গাঁরোয় তিনিই অবিসংবাদিত রাজা।
হ্যাঁ, নিজ দূর্গে ম্যাচের শুরু থেকেই একাধিপত্য বিস্তার করেন নাদাল। র্যা ঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকলেও প্রতিপক্ষ জোকোভিচকে কোমড় সোজা করে দাঁড়াতেই দেননি। এক তরফা লড়াইয়ে নাদাল প্রথম সেটটা জিতে নেন ৬-০ গেমে!

দ্বিতীয় সেটটাও সহজেই জেতেন নাদাল, ৬-২ গেমে জিতে প্রায় নিশ্চিত করেন শিরোপার পথ। তৃতীয় সেটে খানিকটা লড়াই জোকোভিচ করেছেন। তবে শেষ পর্যন্ত তৃতীয় সেটটাও ৭-৫ গেমে জিতে নিয়েছেন নাদালই। মানে স্নায়ুক্ষয়ী ফাইনালের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে দিয়ে নাদাল লড়াইয়ের যবনিকা টেনে দেন পৌনে তিন ঘণ্টারও কম সময়ে। ম্যাচটা জিতে নেন অতি সহজে, সরাসরি ৬=০, ৬-২, ৭-৫ গেমে। সর্বশেষ কবে দুজনের লড়াই এতটা এক তরফা হয়েছে, সেটি রীতিমতো গবেষণার বিষয়!

রোঁলা গাঁরোয় সর্বোচ্চ শিরোপা জয়ের রেকর্ডটা অনেক আগে থেকেই নাদালের দখলে। এখানে তাই তাকে নিজের রেকর্ডই ভেঙে নতুন করে রেকর্ড গড়তে হয়। কাল সন্ধ্যাও সেটাই করলেন নাদাল। রেকর্ডটাকে টেনে তুললেন ১৩-এর উচ্চতায়। একটা টুর্নামেন্টেই ১৩ বার শিরোপা জয়, প্যারিসের রোঁলা গাঁরোয় নাদাল কত বড় রাজা এটা তারই প্রমাণ।

নিজের এই রেকর্ড ভাঙা এবং ফেদেরারের সর্বোচ্চ গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করাই শুধু নয়।

কালও নাদাল রেকর্ড গড়েছেন আরো। যেমন কালকের জয়টা তার ছিল রোঁলা গাঁরোয় ঠিক ১০০তম জয়। এই শততম জয়ের মাইলফলকটা তিনি আবার গড়লেন ইতিহাসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে। মানে, ইতিহাসে আর কোনো খেলোয়াড়ই রোঁলা গাঁরোয় ১০০তম জয়ের মুখ দেখেনি। অর্থাৎ, এখানেও অনন্য নাদাল।

কেআর

 

আরও পড়ুন

আরও