আকাশে উল্কা বৃষ্টির খেলা আজ রাতে
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১ | ১৫ মাঘ ১৪২৭

আকাশে উল্কা বৃষ্টির খেলা আজ রাতে

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:০৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০২০

আকাশে উল্কা বৃষ্টির খেলা আজ রাতে
আবহাওয়া অনুকূলে এবং আকাশ পরিষ্কার থাকলে মহাজাগতিক আলোর উল্কা বৃষ্টির খেলা দেখা যাবে আজ রোববার এবং আগামীকাল সোমবার রাতে।

রাতের আকাশের অন্ধকার ভেদ করে আলোকরশ্মি তীরের মতো উড়ে যেতে থাকা জেমিনিডস্ নামক এই উল্কার বৃষ্টিপাত পৃথিবীর যেকোনো জায়গা থেকে দেখা যাবে।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন, আকাশের দিকে তাকিয়ে হয়ত গত কয়েক মাসে আপনি অন্য উল্কার বৃষ্টি দেখে থাকতে পারেন, কিন্তু ১৩ ও ১৪ ডিসেম্বর (রোববার ও সোমবার) যে উল্কা বৃষ্টি হতে যাচ্ছে সেটা হবে ‘সব উল্কা বৃষ্টির রাজা’। খবর বিবিসি বাংলার

ব্রিটেনে গ্রেনিচের মানমন্দির, রয়াল অবজারভেটরির জ্যোতির্বিজ্ঞানী প্যাট্রিশিয়া স্কেলটন বলেন, ধূমকেতুর রেখে যাওয়া ধুলিকণায় ভরা আস্তরণের মধ্যে দিয়ে যখন পৃথিবী প্রদক্ষিণ করে, তখনই সাধারণত উল্কার বৃষ্টি ঘটে থাকে।

‘কিন্তু জেমিনিডস উল্কার বৃষ্টিপাত ভিন্ন ধরনের। জেমিনিডস উল্কার বৃষ্টি হয় যখন ৩২০০-ফিটন নামে একটি গ্রহাণুর ছেড়ে যাওয়া ধুলিকণার আস্তরের মধ্যে দিয়ে পৃথিবী যায়,’ ব্যাখ্যা করেন প্যাট্রিশিয়া।

অর্থাৎ প্রতি বছর, আমাদের এই পৃথিবী গ্রহ তার কক্ষপথে ঘোরার সময় যখনই মহাজগতে গ্রহাণু বা ধূমকেতুর ছেড়ে যাওয়া নানা ধরনের বর্জ্য পদার্থের মধ্যে দিয়ে যায়, তখনই আমরা রাতের আকাশে নানা ধরনের চোখ ধাঁধাঁনো আলোর ছটা দেখতে পাই।

সেভাবেই ১৩ ও ১৪ ডিসেম্বর আমরা দেখতে চলেছি জেমিনিডসের উল্কার বৃষ্টি। এসময় প্রতি ঘণ্টায় দেড়শর মতো উল্কার ধারা বৃষ্টি হবে বলে জ্যোতির্বজ্ঞানীরা বলছেন। অর্থাৎ প্রতি ঘণ্টায় আমরা ১৫০ আলোর ফোঁটার বিচ্ছুরণ দেখতে পাব।

রাতের আকাশ যত অন্ধকার হবে, আলোর বিচ্ছুরণ তত চোখ ধাঁধাঁনো হবে। ২০১৭ সালে আমেরিকায় অ্যারিজোনার আকাশ থেকে জেমিনিডসের উল্কা বৃষ্টি দেখা গিয়েছিল।

প্যাট্রিশিয়া বলেন, ‘উল্কা যখন পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে ঢোকে তখন তার গতি থাকে প্রতি সেকেন্ডে ৩৫ কিলোমিটার...সেটা প্রতি ঘণ্টায় ১ লাখ ৩০ হাজার কিলোমিটারের সামান্য কম!’

আপনি এই উল্কা বৃষ্টির সময় দেখতে পাবেন রাতের আকাশ আলোকিত হয়ে উঠছে হলুদ আলোর ছটায়, কখনও দেখবেন সবুজ বা নীল আলোর ঝিলিক।

প্যাট্রিশিয়া বলছেন, ‘উল্কার কণাগুলো পুড়ে গিয়ে আকাশে এদিক ওদিক ছিটকে পড়ার কারণে এই আলোর রোশনাই আমরা দেখি।’

আকাশ যত অন্ধকার হবে, এই অসাধারণ সুন্দর আলোর রোশনাই তত বেশি উপভোগ করার সুযোগ হবে। এমনকি শহরে যারা থাকেন, কৃত্রিম আলোর কারণে আকাশের প্রাকৃতিক অন্ধকার যারা পুরো মাত্রায় পান না, তাদেরও এই আলোর ঝলকানি দেখার সুযোগ হবে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যারা এই অভিনব আলোর খেলা উপভোগ করতে চান, তাদের জন্য বাড়তি সুখবর এ বছর এই সময়ে পড়েছে অমাবস্যা, ফলে আকাশ প্রাকৃতিক কারণেই থাকবে অন্ধকার। এর আগে উল্কা বৃষ্টির সময় পূর্ণিমা থাকায় এই আলোর সৌন্দর্য কম উপভোগ করা গিয়েছিল।

নিজের ঘরে বসেই আকাশের এই অভিনব দৃশ্য আপনি উপভোগ করতে পারবেন, তার জন্য টেলিস্কোপ বা দামি কোনো যন্ত্রপাতির প্রয়োজন হবে না। দুটি গ্রহের মিলে এক হয়ে যাওয়া, সবচেয়ে বর্ণাঢ্য উল্কা বৃষ্টি এবং সূর্যের পূর্ণ গ্রহণ...এসব চমকপ্রদ মহাজাগতিক ঘটনা দেখতে প্রয়োজন শুধু পরিষ্কার আকাশ, দরকার হলে চোখকে রক্ষা করার কোনো সরঞ্জাম এবং এটা জানা যে আকাশের কোথায় এবং কখন এসব দেখা যাবে।

এইচআর

 

আরও পড়ুন

আরও