তৌফিকা ফুডসের মুনাফা প্র্রকাশ, কাল লেনদেন শুরু
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১১ আশ্বিন ১৪২৮

তৌফিকা ফুডসের মুনাফা প্র্রকাশ, কাল লেনদেন শুরু

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:৪৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০২১

তৌফিকা ফুডসের মুনাফা প্র্রকাশ, কাল লেনদেন শুরু
পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্তির অনুমোদন পাওয়া কোম্পানি লাভেলো ব্রান্ডের আইসক্রীম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান তৌফিকা ফুডস অ্যান্ড এ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

আর্থিক হিসাব ঘোষণা করা কোম্পানিটির লেনদেন আগামী বুধবার, ১০ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে। ওইদিন কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ‘এন’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন শুরু করবে।

মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় হয়েছিল ০.০৪ পয়সা।

আলোচ্য সময়ে আইপিও পরবর্তী শেয়ার হিসাবে ইপিএস হয়েছে ০৮ পয়সা।

একই সময়ে কোম্পানিটির কর পরিশোধের পর মুনাফা হয়েছে ৬৯ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ২২ লাখ টাকা।

অন্যদিকে, দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৫০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় হয়েছিল ৫৮ পয়সা।

আলোচ্য সময়ে আইপিও পরবর্তী শেয়ার হিসাবে ইপিএস হয়েছে ৩২ পয়সা।

৬ মাসে কোম্পানিটির কর পরিশোধের পর মুনাফা হয়েছে ২ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা।

৩১ ডিসেম্বর, ২০২০ সমাপ্ত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩ টাকা ২৪ পয়সা। আর আইপিও পরবর্তী শেয়ার হিসাবে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ১২ টাকা ১০ পয়সা।

সূত্র জানায়, ডিএসইতে লাভেলোর ট্রেডিং কোড হবে “TAUFIKA”। আর কোম্পানি কোড হবে ১৪২৯৬।

রোববার, ৭ ফেব্রুয়ারি সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি অব বাংলাদেশ লিমিটেড (সিডিবিএল) এর মাধ্যমে কোম্পানির আইপিও’র লটারিতে বরাদ্দপ্রাপ্ত শেয়ার বিনিয়োগকারীদের বিও হিসাবে জমা হয়েছে।

কোম্পানিটি গত ২৬ জানুয়ারি আইপিও লটারির অনুষ্ঠান সম্পন্ন করেছে।

এর আগে গত ৩ জানুয়ারি থেকে ৭ জানুয়ারি পরযন্ত কোম্পানিটির আইপিও আবেদন গ্রহণ সম্পন্ন করেছে।

কোম্পানিটি ফিক্সড প্রাইস পদ্ধতির আইপিওর আওতায় অভিহিত মূল্য ১০ টাকা দরে ৩ কোটি শেয়ার ইস্যু করে পুঁজিবাজার থেকে ৩০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।ওই অর্থ দিয়ে মেশিনারিজ ও ইকুইপমেন্ট ক্রয়, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচ মেটাতে ব্যয় করা হবে।

এই লক্ষ্যে ১৫ গত অক্টোবর পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটিকে আইপিওর অনুমোদন দেয়।

কোম্পানির তথ্য মতে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস ছিল ১০ টাকা ৫ পয়সা। অন্যদিকে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই ১৯- সেপ্টেম্বর ১৯) ইপিএস ছিল ১ টাকা ২০ পয়সা। গত ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ তারিখে লাভেলো আইসক্রিমের শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) ছিলো ১২ টাকা ১৭ পয়সা।

কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে বানকো ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট এবং সন্ধানী লাইফ ফাইন্যান্স লিমিটেড।

জেডএস

 

আরও পড়ুন

আরও