লাভ-ক্ষতির তথ্য দিল ৬ কোম্পানি
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

লাভ-ক্ষতির তথ্য দিল ৬ কোম্পানি

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১২:৪৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৭, ২০২০

লাভ-ক্ষতির তথ্য দিল ৬ কোম্পানি
পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ছয়টি কোম্পানি দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে তাদের ব্যবসায়ের আর্থিক বিবরণী প্রকাশ করেছে। সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে এ তথ্য জানানো হয়।

সিটি ব্যাংক

সিটি ব্যাংকের চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে (জানুয়ারি-জুন’২০) সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) ৪২ শতাংশ কমেছে।

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১.০৫ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১.৮২ টাকা। এহিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ০.৭৭ টাকা বা ৪২ শতাংশ কমেছে।

এদিকে চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ৩ মাসে অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ০.৩০ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১.০৬ টাকা। এ হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ০.৭৬ টাকা বা ৭২ শতাংশ কমেছে।

২০২০ সালের ৩০ জুন কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৪.৬৭ টাকায়।

প্রাইম ব্যাংক

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে (জানুয়ারি-জুন’২০) প্রাইম ব্যাংকের সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) ৪৭ শতাংশ কমেছে।

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৮ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ০.৯০ টাকা। এহিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ০.৪২ টাকা বা ৪৮ শতাংশ কমেছে।

এদিকে চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ৩ মাসে অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ০.০৬ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ০.৫৩ টাকা। এ হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ০.৪৭ টাকা বা ৮৯ শতাংশ কমেছে।

২০২০ সালের ৩০ জুন কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৩.৮৮ টাকায়।

রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে (জানুয়ারি-জুন’২০) রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) ৭ শতাংশ কমেছে।

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ২.৪৯ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ২.৬৯ টাকা। এহিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ০.২০ টাকা বা ৭ শতাংশ কমেছে।

এদিকে চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ৩ মাসে অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১.২৭ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১.৬৮ টাকা। এ হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ০.৪১ টাকা বা ২৪ শতাংশ কমেছে।

২০২০ সালের ৩০ জুন কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৫১.১২ টাকায়।

রেকিট বেনকিজার

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে (জানুয়ারি-জুন’২০) রেকিট বেনকিজারের  শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) ৫৪ শতাংশ বেড়েছে।

চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ৫৭.৫১ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ৩৭.২৮ টাকা। এহিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ২০.২৩ টাকা বা ৫৪ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ৩ মাসে অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ৩৩.৪৭ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ২১.৮২ টাকা। এ হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা ১১.৬৫ টাকা বা ৫৩ শতাংশ বেড়েছে।

২০২০ সালের ৩০ জুন কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২০০.১৫ টাকায়।

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড (এসআইবিএল)

চলতি হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিকে (জানুয়ারি-জুন’২০) সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি আয় (Consolidated EPS) হয়েছে ৫০ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস ছিল ৩৯ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (Solo EPS) হয়েছে ৫১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ৩৮ পয়সা।

কেবল দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন ২০২০) সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি আয় (Consolidated EPS) হয়েছে ১১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস ছিল ১০ পয়সা।

অন্যদিকে দ্বিতীয় প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (Solo EPS) হয়েছে ১২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সলো ইপিএস ছিল ১০ পয়সা।

দুই প্রান্তিকে ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ছিল মাইনাস ২ টাকা ৫২ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল ৩ টাকা ২৮ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ছিল মাইনাস ২ টাকা ৫২ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল ৩ টাকা ২৮ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২০ তারিখে সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৯ টাকা ৮৮ পয়সা, আর এককভাবে এনএভিপিএস ছিল ১৯ টাকা ৮৪ পয়সা।

পিপলস ইন্স্যুরেন্স

চলতি হিসাব বছরের প্রথম দুই প্রান্তিকে অর্থাৎ ৬ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৮৫ পয়সা।

প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছিল ৪৩ পয়সা। সে হিসেবে দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইপিএস দাঁড়ায় ৩৮ পয়সা।

প্রথম দুই প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো ছিল ৮৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল মাইনাস ২৪ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২০ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয় ২৭ টাকা ৯৫ পয়সা।

জেডএস

 

: আরও পড়ুন

আরও