সিরিজ জিততে বাংলাদেশের চাই ১২৯ রান
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০ আশ্বিন ১৪২৮

সিরিজ জিততে বাংলাদেশের চাই ১২৯ রান

ক্রীড়া ডেস্ক ৬:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০২১

সিরিজ জিততে বাংলাদেশের চাই ১২৯ রান
পাঁচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে বাংলাদেশকে জয়ের জন্য ১২৯ রানের টার্গেট দিয়েছে সফরকারী নিউজিল্যান্ড।
টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১২৮ রান করে নিউজিল্যান্ড। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে বাংলাদেশ। আজকের ম্যাচ জিতলেই সিরিজ জয় নিশ্চিত করবে টাইগাররা। 

রোববার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস করতে নেমেই অনন্য মাইলফলক স্পর্শ করেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। এটি ছিলো তার শততম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। তবে এমন ম্যাচে টস ভাগ্যে জিততে পারেননি মাহমুদুল্লাহ। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্বান্ত নেয় নিউজিল্যান্ড। 

করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে এ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের ইনিংস শুরু করেন ফিন অ্যালেন। উদ্বোধনী জুটিতে অ্যালেনের সঙ্গী ছিলেন রাচিন রবীন্দ্র। ইনিংসের প্রথম ওভার করতে আসেন বাংলাদেশের স্পিনার মাহেদি হাসান। অ্যালেনের দুই বাউন্ডারিতে প্রথম ওভারে ১১ রান পায় নিউজিল্যান্ড। 
স্পিনার নাসুম আহমেদের করা দ্বিতীয় ওভারে আরও একটি চার মারেন অ্যালেন। প্রথম দুই ওভারে মাহেদি ও নাসুমকে স্বাচ্ছেন্দ্যে খেলায়, তৃতীয় ওভারেই পেসার মুস্তাফিজুর রহমানকে আক্রমণে আনেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। 

অধিনায়কের সিদ্বান্তকে সঠিক প্রমাণ করেন মুস্তাফিজ। প্রথম বলেই অ্যালেনকে বিদায় দেন ফিজ। মিড-অনে মাহমুদুল্লাহকে ক্যাচ দেন ১০ বলে ১৫ রান করা অ্যালেন। মুস্তাফিজের ওভারটি ছিল এক উইকেটসহ মেডেন। 

অ্যালেন ফিরে গেলেও রানের চাকা সচল রাখেন রবীন্দ্র ও উইল ইয়ং। সাকিবের প্রথম ওভারে দু’টি বাউন্ডারি আদায় করে ইয়ং। পাওয়ার-প্লেতে স্বাচ্ছেন্দ্যে ব্যাট করে দলের স্কোর ৪০-এ নেন রবীন্দ্র-ইয়ং জুটি।

ইনিংসের সপ্তম ওভারে প্রথমবারের মত আক্রমণে এসে চমক দেখান মিডিয়াম পেসার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। চতুর্থ বলে ইয়ংকে ও শেষ বলে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে শিকার করেন তিনি। দু’জনই লেগ বিফোর হন। ইয়ং ২০ বলে ২০ ও গ্র্যান্ডহোম খালি হাতে ফিরেন। 

এরপর উইকেটে সেট হয়ে থাকা রবীন্দ্রকে বিদায় দেন মাহমুদুল্লাহ। প্রতিপক্ষের অধিনায়কের বলে বোল্ড হবার আগে ২০ বলে ২টি চারে ২০ রান করেন রবীন্দ্র। 

আর নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক টম লাথামকে নিজের বলেই ক্যাচ নিয়ে বাংলাদেশকে বড়সড় ব্রেক-থ্রু এনে দেন মাহেদি। আগের ম্যাচে অপরাজিত ৬৫ রান করে দলকে দারুণভাবে লড়াইয়ে রেখেছিলেন লাথাম। কিন্তু এবার লাথামকে ৯ বলের বেশি ঠিকতে দেননি মাহেদি। এতে ১১তম ওভারে ৬২ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে নিউজিল্যান্ড। 

এ অবস্থায় দলের হাল ধরেন হেনরি নিকোলস ও টম ব্লান্ডেল। উইকেট বাঁচিয়ে খেলে ধীরলয়ে এগোতে থাকেন তারা। জুটিতে প্রথম ৩৬ বলে কোন বাউন্ডারিই মারতে পারেননি নিকোলস ও ব্লান্ডেল। ১৭তম ওভারের শেষ বলে বাউন্ডারি আসে ব্লান্ডেলের ব্যাট থেকে। ওভার শেষে নিউজিল্যান্ডের স্কোর ছিলো ৫ উইকেটে ৯৫ রান। রান রেট ৬এর নিচে ছিলো। 

মুস্তাফিজের করা ১৮তম ওভারে নিকোলসের ২টি চারে ১৩ রান পায় নিউজিল্যান্ড। পরের ওভারে ১টি চার হাঁকান ব্লান্ডেল। ওভারে আসে ৯ রান। 

আর মুস্তাফিজের করা শেষ ওভার থেকে ১১ রান তুলেন নিকোলস ও ব্লান্ডেল। ১টি করে বাউন্ডারি মারেন দুই ব্যাটসম্যান। এই ওভারে সাকিবের হাতে জীবন পান ব্লান্ডেল। শেষ পর্যন্ত অবিচ্ছিন্নই থাকেন নিকোলস ও ব্লানডেল। ষষ্ঠ উইকেটে ৫৫ বলে অবিচ্ছিন্ন ৬৬ রান যোগ করেন তারা। এতে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১২৮ রানের লড়াই করার  পুঁজি পায় নিউজিল্যান্ড। 

নিকোলস ২৯ বলে ৩৬ এবং ব্লান্ডেল ৩০ বলে ৩০ রান করেন। ৩টি করে চার মারেন দুই ব্যাটসম্যান ।   

বাংলাদেশের সাইফুদ্দিন ২টি, মাহেদি-মুস্তাফিজ-মাহমুদুল্লাহ ১টি করে উইকেট নেন।

 

আরও পড়ুন

আরও