মিয়ানমারে ধর্মঘটের ডাক শ্রমিক ইউনিয়নের
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ১০ বৈশাখ ১৪২৮

মিয়ানমারে ধর্মঘটের ডাক শ্রমিক ইউনিয়নের

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:৫৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ০৮, ২০২১

মিয়ানমারে ধর্মঘটের ডাক শ্রমিক ইউনিয়নের
মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের পর উদ্ভুত পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক অবস্থা অনেকটা ভঙ্গুর হয়ে পড়ায় ধর্মঘটে যাচ্ছে দেশটির শ্রমিক ইউনিয়নগুলো।

সোমবার দেশটির গুরুত্বপূর্ণ ট্রেড ইউনিয়নগুলো ধর্মঘট ডেকেছে। সেনাশাসকদের ওপর চাপ সৃষ্টির লক্ষ্যে তারা এই কর্মসূচি পালন করতে যাচ্ছে। খবর রয়টার্সের

গতকাল রোববার রাতে দেশটির বাণিজ্যিক রাজধানী ইয়াঙ্গুনের বিভিন্ন এলাকায় গুলি ও গ্রেনেডের শব্দ শোনার কথা জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। গতকাল ইয়াঙ্গুনে অন্তত তিনজন বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।

মিয়ানমারে পুলিশি হেফাজতে মারা গেছেন দেশটির স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেতা খিন মং লাত। গতকাল পরিবারের কাছে তাঁর মরদেহ হস্তান্তর করে নিরাপত্তা বাহিনী। তার আগের দিন শনিবার রাতে ইয়াঙ্গুনের পেবেডান জেলা থেকে খিন মং লাতকে গ্রেপ্তার করা হয়। হেফাজতে নির্যাতনে তার মৃত্যু হয়েছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে পুলিশ ও সেনাবাহিনী কোনো মন্তব্য করেনি।

আজ এক বিবৃতিতে সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা আগের দিন মোট ৪১ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।

ট্রেড ইউনিয়নগুলো এক বিবৃতিতে বলেছে, ব্যবসা ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখার অর্থ হলো বর্তমান সামরিক সরকারকে সহায়তা করা।

ট্রেড ইউনিয়নগুলোর বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমাদের গণতন্ত্র রক্ষায় ব্যবস্থা নেওয়ার এখনই সময়।’

আজ ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দেশটির নারীদের বিভিন্ন সংগঠন লুঙ্গি আন্দোলনের ডাক দিয়েছে।

মিয়ানমারে গণতন্ত্রপন্থী বিক্ষোভের অন্যতম নেতা মং সাউংখা ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে দেশটির নারীদের আজ সাহসের সঙ্গে রাজপথে নেমে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

লুঙ্গি আন্দোলনের আরেক সংগঠক নাই চি মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী নারীদের ‘বিপ্লবী’ হিসেবে অভিহিত করেছেন।

তিনি বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, তাদের লোকজন নিরস্ত্র, তবে জ্ঞানী। সেনাবাহিনী ভয় দেখিয়ে শাসন করার চেষ্টা করছে। আর তাঁরা লড়াই করবেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান হয়। এই অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেন সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং। সেনাবাহিনী ক্ষমতাচ্যুত করে স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি ও প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টকে। একই সঙ্গে সু চিসহ শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তার করে সেনাবাহিনী। দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে সেনাবাহিনী।

ওএস/এইচআর

 

আরও পড়ুন

আরও