দিল্লিতে নিশানায় মুসলিমরাই: মার্কিন কমিশন
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল ২০২০ | ১৮ চৈত্র ১৪২৬

দিল্লিতে নিশানায় মুসলিমরাই: মার্কিন কমিশন

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:১৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০

দিল্লিতে নিশানায় মুসলিমরাই: মার্কিন কমিশন

দিল্লিতে বেছে বেছে সংখ্যালঘু মুসলিমদেরই নিশানা করে হামলা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ করল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক কমিশন।

শুক্রবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) মার্কিন কমিশনের চেয়ারম্যান টনি পার্কিন্স বলেছেন, বেছে বেছে শুধু সংখ্যালঘু মুসলিমদের নিশানা করে আক্রমণ, তাদের বাড়িঘর, দোকানপাট, মসজিদ জ্বালিয়ে দেওয়ার যে খবর পাওয়া যাচ্ছে তা উদ্বেগজনক।

তার কথায়, “যে কোনো দায়িত্বশীল সরকারের কাজ, ধর্ম নির্বিশেষে নাগরিকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা।” কমিশনার অরুণিমা ভার্গবও বলেন, “দিল্লি জুড়ে বর্বর-লাগামহীন হিংসা বন্ধ হওয়া প্রয়োজন। আমরা খবর পেয়েছি, মুসলিমদের উপরে আক্রমণ রুখতে দিল্লি পুলিশ কিছুই করেনি। নাগরিকদের রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে সরকারও।”

এর আগে, গতকালই দিল্লির সহিংসতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন মার্কিন কংগ্রেসের একাধিক সদস্য।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের প্রধান মিশেল ব্যাশলে বলেছেন, দিল্লিতে ‘মুসলিমদের উপরে আক্রমণ সত্ত্বেও পুলিশি নিষ্ক্রিয়তা’-র খবরে তিনি চিন্তিত। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়েও গভীর উদ্বেগ জানান তিনি।

জেনেভায় মানবাধিকার পরিষদের বৈঠকে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে ব্যাশলে আজ (২৮ ফেব্রুয়ারি) বলেন, “ভারতের সব গোষ্ঠীর মানুষেরা বিরাট সংখ্যায়, মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবেই এই আইনের বিরোধিতা করেছেন। আস্থা রেখেছেন তাদের দেশে ধর্মনিরপেক্ষতার দীর্ঘ ঐতিহ্যে। মুসলিমরা আক্রান্ত, পুলিশ নিষ্ক্রিয়। শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদীদের উপরে পুলিশি বাড়াবাড়ি হয়েছে। আমি উদ্বিগ্ন। নেতাদের আর্জি, হিংসা রোধ করুন।”

কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বাড়াবাড়ি মাত্রায় বলপ্রয়োগের অভিযোগ সত্ত্বেও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে মন্তব্য করেন তিনি। বলেন, প্রায় ৮০০ মানুষ এখনও আটক রয়েছেন।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, একটি ব্রিটিশ দৈনিক দিল্লির ঘটনায় সরাসরি মোদির দিকেই আঙুল তুলেছে। তারা লিখেছে, “প্রধানমন্ত্রী মুখে শান্তি ও সৌভ্রাত্রের কথা বলছেন। অথচ তিনিই দেশকে এই জায়গায় নিয়ে এসেছেন। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে পথ আটকে প্রতিবাদে নামা মুসলিমদের কপিল মিশ্রের মতো বিজেপি নেতার উস্কানির জেরেই আক্রমণ করে সশস্ত্র বাহিনী। অসহায় মুসলিমরাই ছিলেন তাদের নিশানা ও শিকার। আর পুলিশ ছিল দর্শক।”

দৈনিকটির বক্তব্য, বিজেপি নেতারা আক্রমণকারীদের উৎসাহ দেন এবং শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদীদের ‘খুনি ও ধর্ষক’ বলেন।

এদিকে, রোববার থেকে শুরু হওয়া দিল্লির সহিংসতার ঘটনায় শুক্রবার পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২। ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, এখনও থমথমে দিল্লির মৌজপুর বাবরপুর, জাফরাবাদের মতো বেশ কয়েকটি এলাকা।

তবে নিরাপত্তা জোরদার করার পর শেষ ৩৬ ঘণ্টায় বড় কোন সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি বলে দিল্লি পুলিশের বরাতে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

এমএফ/

আরও পড়ুন...
দিল্লিতে সহিংসতায় নিহত বেড়ে ৪২

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও