চিরনিদ্রায় শায়িত কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ১০ বৈশাখ ১৪২৮

চিরনিদ্রায় শায়িত কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর

রাজশাহী ব্যুরো ২:০০ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২০

চিরনিদ্রায় শায়িত কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর
আমার ভাগ্য বড় আজব যাদুকর, ও সে এক পলকে শূন্য করে দিল সাধের ঘর। ও বড় নিঠুর যাদুকর। দুনিয়া দুই দিনের মেলা, এসেছি একেলা যাবো একেলা, মধ্যে বড়ই মায়ার খেলা, এসেছি একেলা যাবো একেলা।

হ্যাঁ এসেছিলেন একা গেলেনও একা। তবে রেখে গেলেন তাঁকে মনে রাখার মতো হাজার হাজার গান।

কণ্ঠশ্রমিক এন্ড্রু কিশোরকে বুধবার দুপুর ১২টার দিকে সমাধিস্থ করা হলো বাবা ক্ষীতিশ চন্দ্র বাড়ৈ ও মা মিনু বাড়ৈর কাছাকাছি জায়গায়।

তবে রাজশাহীতে জন্ম নেয়া এ কণ্ঠ জাদুকরের শেষ ইচ্ছার একটি অপূর্ণ থেকে গেল শিক্ষা জীবনের ছুটে চলা বিদ্যাপিঠ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী কলেজে শ্রদ্ধা জানানোর আনুষ্ঠানিকতা।

করোনা পরিস্থিতির কারণে এ অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়।

মহানগরীর কাজিহাটা এলাকার সিটি চার্চে বরিশাল থেকে আসা ফাদার বিশপ সৌরভের শেষকৃত্য অনুষ্ঠান শেষে তাঁকে নেয়া হয় শ্রীরামপুর এলাকার খ্রিষ্টানদের কবরস্থানে। তাঁর দেখিয়ে দেয়া জায়গাতেই সমাহিত করা হয়।

প্রার্থনা শেষে সাধারণের শ্রদ্ধা জানাতে চার্চের সামনে রাখা হয় তাঁর মরদেহ। এখানে সবাই ফুলে ফুলে সিক্ত করেন কণ্ঠের জাদুকরকে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, গীতিকার ও সুরকার ইথুন বাবুসহ সংগীত ও চলচ্চিত্র অঙ্গনের শিল্পী কলাকুশলী ও বন্ধুবান্ধবরা।

এর আগে সকাল ৯টায় তার মরদেহ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিমঘর থেকে নেয়া হয় সিটি চার্চে। সেখানে শেষকৃত্য অনুষ্ঠান শেষে সর্বজন মানুষ শ্রদ্ধা জানান।

মঙ্গলবার রাতেই সিটি চার্চের সামনে প্রস্তুত করা হয় এন্ড্রু কিশোরকে শ্রদ্ধা জানানোর মঞ্চ। তার স্ত্রী লিপিকা এন্ড্রু, ছেলে জয় এন্ড্রু সপ্তক ও মেয়ে মিনিম এন্ড্রু সংজ্ঞাসহ ঘনিষ্ঠজনরা তার মঞ্চ তৈরি করেন।

প্লে ব্যাক সম্রাটের দুলাভাই ডা. প্যাট্রিক বিপুল বিশ্বাস জানান, এন্ড্রু কিশোর মারা যাওয়ার আগে তার ছেলে মেয়ের খোঁজ-খবর নিচ্ছিলেন। তখন তিনি জানিয়েছিলেন, মারা গেলেও তার ছেলে-মেয়ের শেষ দেখার জন্য যেন অপেক্ষা করা হয়। তার শেষ ইচ্ছানুযায়ী সন্তানদের দেখার জন্য এতদিন অপেক্ষা করা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়া থেকে গত বৃহস্পতিবার তার ছেলে ও সোমবার তার মেয়ে রাজশাহীতে আসে।

তিনি আরো জানান, শুরুতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিলো হাসপাতালের হিমঘর থেকে মরদেহ চার্চে নেয়ার পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী কলেজে সর্বজন মানুষের শ্রদ্ধার জন্য রাখা হয়। ৯ দিন মরদেহ হিমঘরে রাখার কারণে মরদেহ পচে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে পরে সে সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়।

ডা. পাট্রিক বিপুল বিশ্বাস বলেন, ‘প্রতি বছর ১ নভেম্বর খ্রিস্টানরা সমাধিস্থলে যান এবং প্রয়াত স্বজনদের আত্মার মুক্তির জন্য স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা করেন। ২০১৭ সালের এমন একদিনে এন্ড্রু কিশোর আমাকে নিয়ে সিমেট্রিতে যান এবং প্রার্থনা শেষে সিমেট্রিটা ঘুরে দেখার সময় স্থান পছন্দ করে বলেছিলেন, তিনি যখন মারা যাবেন তখন যেন তাঁকে সেখানেই সমাহিত করা হয়। সেই জায়গাতেই তার সমাধি করা হলো। আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় একসঙ্গে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হবে।’

রাজশাহীতে জন্ম নেয়া এন্ড্রু কিশোর প্রায় ১৫ হাজার গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। ৮ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া এই শিল্পি ক্যানসারে ভুগছিলেন। ১৯৭৭ সালে তিনি চলচ্চিত্রে প্রথম গান করেন। তারপর আর তাঁকে পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক গান গেয়ে দর্শকদের হৃদয় ছুয়ে গেছেন। এজন্যই তিনি প্লে ব্যাক সম্রাট উপাধি পেয়েছিলেন। গুনি এ শিল্পি ১৯৫৫ সালে রাজশাহীতে জন্মগ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য গত ৬ জুলাই সোমবার সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান এলাকায় থাকা বোনের বাড়িতে প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর মারা যান। এরপর তার মরদেহ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে।

গত বছরের ৯ সেপ্টেস্বর শরীরের নানা জটিলতা নিয়ে সিঙ্গাপুর চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন এন্ড্রু কিশোর। শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তার ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়ে। এরপর থেকেই সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি। ছয়টি ধাপে তাকে ২৪টি কেমোথেরাপি দেয়া হয়।

এরপর ১১ জুন রাতে একটি বিশেষ ফ্লাইটে তাকে দেশে আনা হয়। দেশে ফেরার পর ঢাকার মিরপুরের বাসায় অবস্থান করে চলে আসেন রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান এলাকায় বোন ডা. শিখা বিশ্বাসের বাসায়।

গত ৫ জুলাই রোববার থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। পরের দিন সোমবার তাঁকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত এদিন সন্ধ্যায় তিনি মারা যান। মাটির টানে বার বার রাজশাহীতে ফিরে আসা এই বরেণ্য শিল্পীর শেষ বিদায় হলো এই রাজশাহীতেই।

বিএইচ/এইচআর
আরও পড়ুন...
এন্ড্রু কিশোরের শেষকৃত্য সম্পন্ন, দুপুরে সমাহিত

 

আরও পড়ুন

আরও