পঞ্চগড় সীমান্তে ভারতীয়দের হাতে ৩ বাংলাদেশি ‘আটক’
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

পঞ্চগড় সীমান্তে ভারতীয়দের হাতে ৩ বাংলাদেশি ‘আটক’

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ৬:৫০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০২১

পঞ্চগড় সীমান্তে ভারতীয়দের হাতে ৩ বাংলাদেশি ‘আটক’
পঞ্চগড় সীমান্তে তিন বাংলাদেশি গরু ব্যবসায়ীকে ভারতীয়রা আটক করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।


জানা যায়, জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগড় ইউনিয়নের নন্দগছ গ্রামের তরিকুল ইসলাম সীমান্তে ভারতীয় গরুর চোরাচালান এনে ভারতীয় ব্যাবসায়ীর টাকা পরিশোধ না করায় একই ইউনিয়নের দাফাদার পাড়ার সমারুর ছেলে জাহেদুল ইসলাম (৩০) সহ আরো অজ্ঞাত দুজনকে আটকিয়ে জিম্মি করে রেখেছে ভারতীয় সীমান্ত চোরাকারবারীরা।

এদিকে, জাহেদুল ইসলাম সহ প্রায় ১০ জন গত বুধবার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাতে তেঁতুলিয়া উপজেলার শুকানি/ভুতিপুকুর সীমান্ত দিয়ে গরু আনতে ভারতে প্রবেশ করে। পাওনা টাকা না পেয়ে ভারতীয় ব্যবসায়ীরা এসময় তিনজনকে আটক করে। এ সময় ভজনপুর এলাকার রিপন, কলেজ পাড়া এলাকার সাইদুল সহ প্রায় ৭ জন ভারতীয় চোরাকারবারীদের হামলায় আহত হয়ে কোনমতে প্রাণে বেঁচে অবৈধ পথে দেশে ফিরে আসে। ভারতে আটক জাহেদুলের নাম জানাগেলেও বাকি দুজনের নাম এখনো জানা যায়নি। 

সুত্রে খবর ঐ দুইজন পঞ্চগড় সদর উপজেলার জগদল ও দশমাইল এলাকার বাসিন্দা। ভারতের জলপাইগুড়ি জেলার রাজগঞ্জ সুকানি সীমান্তের ফকিরা পাড়া এলাকায় তাদের আটক করে রাখা হয়েছে।

আটক থাকা জাহেদুলের ছোট ভাই নুর ইসলাম অভিযোগ করে জানান, তরিকুলের কাছে ভারতীয়রা প্রায় ৬ লক্ষ টাকা পাবে বলে জাহেদুলকে আটক রাখার খবর পেয়েছি। ভারতের ঐ এলাকার ভোম্বোল মেম্বার, দারিয়া, ঘোষ, পানিয়া, সমারু, রফিকুল, ডোডো, তরিকুল, রাজিপ, ধনি নামের চোরাকারবারীরা তাদের আটকিয়ে জিম্মি করে রেখেছে।

এদিকে জাহেদুলের মা জাহিদা বেগম জানান, দীর্ঘদিন থেকে আমার ছেলেকে সীমান্তে নিয়ে যাচ্ছে, দুলাল, আলম, ব্লু, আলমগীর, তরিকুল সহ অনেকেই। তারা আমার ছেলেকে ভারতে পাচার করে জিম্মি করেছে, আমি তাদের বিরুদ্ধে তেঁতুলিয়া থানায় অভিযোগ করতে যাওয়ার সময় আমাকে ফেরত আনা হয়েছে। এখন আমি কিছু চাইনা, শুধু মাত্র ছেলেকে সহি সালামতে বাড়ীতে দেখতে চাই। 

তবে এবিষয়ে অভিযুক্ত তরিকুলের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তার মুঠো ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

তেঁতুলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সায়েম মিয়ার বলেন, ভারতে পাচার বা অপহরনের কোনো অভিযোগ আসেনি আমাদের কাছে। যদি এমন অভিযোগ পাই তবে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এসবিসি  

 

আরও পড়ুন

আরও