সংস্কারের ৩ মাসেই তাড়াশ-খালখুলা সড়ক পুকুরে পরিণত
Back to Top

ঢাকা, শনিবার, ৮ আগস্ট ২০২০ | ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

সংস্কারের ৩ মাসেই তাড়াশ-খালখুলা সড়ক পুকুরে পরিণত

আশরাফুল ইসলাম রনি, তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) ৯:৫৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৩, ২০২০

সংস্কারের ৩ মাসেই তাড়াশ-খালখুলা সড়ক পুকুরে পরিণত
মাত্র তিন মাস আগেই সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার তাড়াশ-খালখুলা সড়কের ৫ কিলোমিটার সংস্কার করা হয়। এরই মধ্যে রাস্তার পিচ ও পাথর উঠে সড়কে খানাখন্দে পুকুরে পরিণত হয়েছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতরত হাজারো মানুষ।

 

জানা যায়, তাড়াশ-খালখুলা সড়কটি উপজেলার পৌর এলাকার খুটিগাছা থেকে খালখূলা সড়কের ৫ কিলোমিটার সড়ক হলো সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায়। এ সড়কটি দীর্ঘ দিন যাবত হাজারো খানাখন্দে ভরপুরে পড়ে ছিল। অভিভাবকহীন থাকায় এই সড়কটি দিয়ে যাতায়াতকারী হাজারো মানুষের দুর্ভোগের সীমা ছিলনা। পরবর্তীতে গত ৩ মাস পুর্বে সড়কটি সংস্কার করা হলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতির কারনে আবারো সড়কটির চেহারা ফিরে যায় পুরানো রুপে। বর্তমানে টানা কয়েকদিনের বৃষ্টিতে সড়কের বেশ কয়েকটি জায়গা ভেঙ্গে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলার খালখুলা গ্রামের মইনুল হক বলেন, খালখুলা বাজারের উত্তর পাশে গর্ত হয়ে পুকুরে ন্যায় সৃষ্টি হয়েছে। চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এই এলাকার মানুষজনের। শুধুমাত্র সড়ক ও জনপথ বিভাগের সীমাহীন অবহেলা ও দায়িত্বহীনার কারনেই সড়কটির বেহাল দশা বলে তিনি অভিযোগ করেন।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, এ সড়ক সংস্কার কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রাজশাহীর আমিনুল কনট্রাকশন কাজটি টেন্ডারের মাধ্যমে পেয়ে বিক্রী করে দেন উল্লাপাড়ার ঠিকাদার পরিতোষ বাবুর কাছে। আর এই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ ছিল। তারপরও প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজ করে অনিয়মের মাধ্যমে কোন রকম জোড়াতালি দিয়ে টাকা তুলে নেয়।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বাশবাড়িয়া গ্রামের ওসমান গনি বলেন,‘সংস্কার কাজ শেষ না হতেই খানাখন্দে ভরে গেছে সড়কটি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে কাজ করায় সড়কের বেহাল দশা।’

এ সড়কে চলাচলকারী সিএনজি চালক তুফান মন্ডল বলেন, সড়কে এ অবস্থার কারণে ট্রাক,সিএনজি এমনকি অটোভ্যান চালকরা যানবাহন চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। গাড়ি চলতে গিয়ে ঘটছে দুর্ঘটনা। মাঝে মধ্যে বৃষ্টি হওয়ায় গর্ত আরও বড় আকার ধারণ করছে।

সিরাজগঞ্জ সওজ, উল্লাপাড়া সড়ক উপ-বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. কামাল হাসান বলেন, গত কয়েক মাস খালখুলা-খুটিগাছা পর্যন্ত সড়কটির টেন্ডারের মাধ্যমে সংস্কার করা হয়। এতে কাজ পায় রাজশাহীর আমিনুল কনট্রাকশন। পরে কাজটি উল্লাপাড়ার ঠিকাদার পরিতোষ বাবু কিনে নিয়ে কাজ করেন। তাছাড়া পরিতোষ বাবু হার্ট সার্জারী করে বর্তমানে ঢাকায় চিকিৎসাধিন রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, গত কয়েক দিনের ভারী ও হালকা বর্ষণ এবং ভারী যানবাহন চলাচল অব্যাহত থাকায় সড়কের কিছু স্থানে ছোটখাটো খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে। আগামী দুয়েকদিনের মধ্যে অফিসের গাড়ী পাঠিয়ে ভাঙ্গা স্থানগুলো ইট দিয়ে ঠিক করে দেয়া হবে।

এআইআর/এইচকে

 

: আরও পড়ুন

আরও