'চাল মাপে কম দিয়েছি, যা ইচ্ছা লিখেন'
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ২৭ মে ২০২০ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

'চাল মাপে কম দিয়েছি, যা ইচ্ছা লিখেন'

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ৪:০৩ অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

'চাল মাপে কম দিয়েছি, যা ইচ্ছা লিখেন'
সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নের সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল ওজনে কম দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ডিলারের বিরুদ্ধে। স্থানীয়দের অভিযোগ ওই ডিলার তিন বছর ধরে এভাবেই ওজনে চাল কম দিয়ে আসছেন। প্রতিবাদ করলে ভয়ভীতি, হুমকি এমনকি মারধর পর্যন্ত করতে আসেন।

এদিকে স্থানীয়দের এসব অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে জানতে চাইলে ওই ডিলার বলেছেন, 'চাল মাপে কম দিয়েছি, যা ইচ্ছা লিখেন'।

শুক্রবার সকালে বহুলী ইউনিয়নের নিয়ামতপুর গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডের নিয়ামতপুরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

ডিলার ফিরোজ আলম খান উপজেলার আলমপুর গ্রামের মৃত ফজল খানের ছেলে ও সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১০ টাকা কেজি দরে ৩০ কেজি চাল বিতরণ করার নিয়ম থাকলেও ট্র্যাক অফিসার মো. তরিকুল ইসলামের উপস্থিতিতে প্রতি বস্তাতে ২/৩ কেজি কম দেওয়ার অভিযোগ উঠে ডিলার ফিরোজ আলমের বিরুদ্ধে। তার নামে সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৫৯০টি কার্ড বরাদ্দ রয়েছে।

এ সময় ৩০ কেজি চাল ওজনে ২/৩ কেজি কম দেওয়ায় কার্ডধারীরা প্রতিবাদ করলে কার্ডধারীদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন তিনি। এ ঘটনায় ফিরোজ আলমের ডিলারশীপ বাতিলের জন্য বিক্ষোভ করেন কার্ডধারীরা।

কার্ডধারী ও এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ ৩ বছর ধরে ডিলার ফিরোজ আলম শেখ চাল কম দিয়ে আসছে। আমরা এই প্রতিবাদ করলে তিনি আমাদের ভয়ভীতি ও নানাভাবে হুমকি দেয় এবং লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে মারধর করতে আসে। এই ভয়ে তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না।

ভুক্তভোগীরা আরো অভিযোগ করে বলেন, এই ডিলার আলম একজন নেশাগ্রস্ত ব্যক্তি। তার সামনে কথা বলতে ভয় লাগে। নেশার ঘোরে কখন কি করে ফেলে বলা যায় না। ফিরোজ আলমের বাড়ি বহুলী ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামে, সে কিভাবে নিয়মতপুরের ৭নং ওয়ার্ডের ডিলারশীপ পায়। ফিরোজ আলম বহুলী ইউনিয়নের নেশার সাম্রাজ্য তৈরি করেছে এবং বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিক্রির জন্য তার প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া আছে।

এলাকায় মাদক সম্রাট হিসেবে তার নামডাক আছে। মাদক বিক্রি ও মাদক সেবনের কারণে এলাকার কেউ তার সাথে কথা বলেনা। নেশার কারণে বহুলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে নিজ দলের লোক তাকে প্রত্যাখ্যান করেছে। নির্বাচনে তিনি পারাজিত হয়েছেন। এর আগেও চাল কম দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে একাধিকবার বিক্ষোভ করেছেন কার্ডধারীরা।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ডিলার মো. ফিরোজ আলম শেখের কাছে জানতে চাইলে বলেন, ওজনে কম দিচ্ছি, আপনারা যা পারেন তা লেখেন।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার জানান, আমি এই ঘটনা শুনে ঘটনাস্থলে লোক পাঠিয়েছি। কোন অনিয়ম হলে ডিলারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একে/পিএসএস

 

: আরও পড়ুন

আরও