বৃহত্তর ঐক্যের পথে বিএনপি
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১ | ৩০ চৈত্র ১৪২৭

বৃহত্তর ঐক্যের পথে বিএনপি

মাহমুদুল হাসান ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ০৩, ২০২১

বৃহত্তর ঐক্যের পথে বিএনপি
‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে’ শক্তিশালী একটি আন্দোলন গড়ে তুলতে সব রাজনৈতিক দলকে এক প্ল্যাটফর্মে এনে বৃহত্তর ঐক্য প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে বিএনপি।

প্রাথমিক আলোচনার মধ্য দিয়ে ভেতরে ভেতরে সবার সঙ্গে একটা সমন্বয় করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন দলটির দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। নতুন বছরই এর সফলতা আসবে বলে মনে করছেন তারা।

গত বছরের নভেম্বরে বিএনপির দায়িত্বশীল নেতারা জোটের বাইরে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সক্রিয় দলগুলোকে সমন্বয় করে একটি বৃহৎ প্ল্যাটফর্ম গঠন করার পরিকল্পনা হাতে নেন। এটাকে সমন্বয় করার জন্য বিএনপির সাবেক এক প্রভাবশালী ছাত্রনেতাকে অনানুষ্ঠানিক দায়িত্ব দেওয়া হয়। তিনি ইতোমধ্যে অনানুষ্ঠানিকভাবে বাম ঘরানার বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তবে এখন কোনো রোডম্যাপ নিয়ে আলোচনা হয়নি।

চা-চক্রের মধ্য দিয়ে প্রাথমিক আলোচনা হচ্ছে বলে জানা গেছে। সবাই একমত হলে বৃহত্তর প্ল্যাটফর্ম গঠনে রোডম্যাপ ঠিক করা হবে। দলীয় সূত্র জানায়, বিএনপির লক্ষ্য, নতুন বছরের শেষ দিকে সরকারবিরোধী একটি শক্তিশালী অবস্থান তৈরি করা। সেই লক্ষ্যে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা কাজ করছেন। দেশে গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সবার কাছে গ্রহণযোগ্য দল নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে একটি নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি আদায়ের লক্ষ্যেই বৃহৎ ঐক্য গঠন করা হবে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘জনগণের পার্লামেন্ট এবং জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আদায়ের লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘সরকার নির্বাচন ব্যবস্থা ধ্বংস করে দিয়েছে। এখন জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় বৃহত্তর ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। আমরা বার বার এটা বলে আসছি। কোনো দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। বর্তমান সরকারের আমলে বিগত নির্বাচনগুলোর দিকে তাকালেই এর প্রমাণ পাওয়া যায়। সুতরাং জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে গণঅভ্যুত্থাণের মধ্যে দিয়ে এই সরকারকে পরাজিত করতে কাজ করছি।’

দলের দায়িত্বশীল এক নেতা জানান, বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতে ইসলামীর নানা সমীকরণ রয়েছে। বৃহত্তর ঐক্য গঠনের ক্ষেত্রে জামায়াত কোনো ফ্যাক্টর নয়। সক্রিয় রাজনীতিতে জামায়াত এখনও কোনো ভূমিকায় নেই। ফলে বৃহত্তর ঐক্য গঠনে বিএনপির জন্য জামায়াত কোনো বাধা নয়। জামায়াতকে নিষ্ক্রিয় রেখেই বাম দলগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করেই বৃহত্তর জোট চূড়ান্ত করা হবে।

গত বছরের ৫ জুলাই সর্বশেষ ভার্চুয়াল বৈঠক করেছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। এরপর জোটের আর কোনো বৈঠক হয়নি। গেল বছর জোটের পক্ষ থেকে কোনো কর্মসূচিও দেওয়া হয়নি।

নির্বাচনের পর থেকে ২০ দলীয় জোট এবং জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট একবারেই নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে। জোট ও ফ্রন্টভুক্ত দলগুলো নিজেরাই অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন। ফলে ঐক্যফ্রন্ট টিকে থাকবে কি না- তা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। দীর্ঘদিন কোনো বৈঠকও করছেন না ফ্রন্টের নেতারা। তবে নেতারা বলছেন, ফ্রন্টের কোনো কার্যকারিতা না থাকলেও ফ্রন্ট ভেঙে দেওয়া হয়নি। শিগগিরই বৈঠক বসে নতুন রোডম্যাপ ঠিক করবেন দায়িত্বশীল নেতারা।

গণফোরাম সভাপতি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা সব সময় বলে আসছি বৃহত্তর ঐক্যের কথা। জনগণকে নিয়েই আমরা একটা বৃহত্তর ঐক্য করতে চাই।

তিনি জানান, এখন এটা নিয়ে বিস্তারিত কিছু বলবো না। আমরা (জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট) মিটিং বসবো। কিছু নীতির ব্যাপার আছে, এতে ঐক্যমত হলে তারপর বিস্তারিত বলব।

তবে কবে নাগাদ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক হবে জানাতে চাইলে তিনি বলেন, শিগগিরই আমরা এ বিষয়ে মিটিং করব।

এইচআর

 

আরও পড়ুন

আরও