এবার কয়লায় দুশ্চিন্তা!
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

>

এবার কয়লায় দুশ্চিন্তা!

মেহেদী হাসান মাসুদ, রাজবাড়ী ২:৪৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২১

এবার কয়লায় দুশ্চিন্তা!
গত এক বছরের ব্যবধানে কয়লার দাম আড়াই গুণ বেড়েছে। দাম বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় রাজবাড়ীর ইটভাটা ব্যাবসায়ীরা চরম আর্থিক লোকসানের মধ্যে পড়েছেন। প্রতি টনে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বেড়েছে কয়লার দাম। এ কারণে এখনও পর্যন্ত অনেক ভাটা মালিক তাদের ইট পোড়ানো শুরু করতে পারেননি।

অন্যদিকে নিষিদ্ধ কাঠে পোড়ানো ভাটাগুলো প্রশাসনের নজর এড়িয়ে পোড়াচ্ছেন দেদারছে ইট। এই ভাটাগুলো বন্ধে জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপের দাবি জানান কয়লায় পোড়ানো ভাটা মালিকেরা। 

রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, কোনোভাবেই কাঠ পোড়ানো যাবে না। তাহলে ইটভাটা বন্ধসহ নেয়া হবে ব্যবস্থা। 

রাজবাড়ীতে বর্তমানে ৮৩টি ইটভাটা রয়েছে। এর মধ্যে অর্ধেক ইটভাটা কাঠ পোড়ানো থেকে সরে এসে কয়লায় ইট পোড়ানো শুরু করেছেন। কিন্তু প্রথম দিকে কয়লায় ইট পোড়ানো খরচ কম হলেও বর্তমানে কয়লার অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধিতে ইট তৈরিতে হিমশিম খাচ্ছেন ভাটা মালিকরা। 

গত বছর শুরুতে প্রতি টন কয়লার দাম ছিল ৯ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যে। কিন্তু কয়লার দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়তে থাকায় বর্তমানে এর বাজার দর দাঁড়িয়েছে প্রতি টন ২৩ থেকে ২৪ হাজার টাকায়। এতে কয়লায় ইট তৈরিতে অত্যাধিক খরচ হচ্ছে। খরচ অনুযায়ী ইটের বাজার দর কম হওয়ায় লোকসানে পড়েছেন মালিকেরা। 

প্রতি হাজার ইট তৈরি করতে লেবার থেকে শুরু করে কয়লা ও অন্যান্য খরচসহ সাড়ে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। কিন্তু যেসব ভাটাগুলোতে কাঠ দিয়ে ইট পোড়ানো হচ্ছে তাদের হাজারে খরচ হচ্ছে ৫ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকার মধ্যে। এ কারণে কাঠে পোড়ানো ইটভাটার মালিকেরা কম দামে ইট বিক্রি করতে পারছেন। আর কয়লায় পোড়ানো ভাটা মালিকেরা ইট বিক্রি করতে পড়েছেন বিপাকে। 

তাই অবৈধভাবে প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে কাঠ দিয়ে ইট পোড়ানো বন্ধ করতে জেলা প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান কয়লা বা জিগজ্যাগ ভাটা মালিকরা। জেলার সব ইটভাটা কাঠ না পুড়িয়ে কয়লায় রুপান্তর করা হলে লোকসান কমে আসবে তাদের।

কয়লায় পোড়ানো ইএসবি, এসআইবি ও এফএবি ইটভাটার মালিক, আবুল কালাম আজাদ, আজিবর সরদার ও কামাল মিয়া পারবর্তনকে বলেন, ‘গত বছরের চাইতে এ বছর প্রায় আড়াই গুণ বেড়েছে কয়লার দাম। এ কারণে ইট তৈরিতে পড়েছেন লোকসানে। গত বছর যেখানে প্রতি টন কয়লা ৯ হাজার টাকার মধ্যে ছিল, এ বছর সে কয়লা টন প্রতি ১৫ হাজার টাকা বেড়ে কিনতে হচ্ছে ২৩ থেকে ২৪ হাজার টাকায়। এতে প্রতি হাজার ইট তৈরি করতে খরচ পড়ছে সাড়ে আট হাজার টাকারও বেশি। কিন্তু কাঠ দিয়ে পোড়ানো ইট তৈরিতে প্রতি হাজারে খরচ হচ্ছে ৫ থেকে ৬ হাজার  টাকার মধ্যে এ কারণে বাজার দরের পার্থক্যে বিপাকে পড়েছেন কয়লা ভাটা মালিকেরা। 

কাঠ দিয়ে পোড়ানো ভাটা বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপের দাবি জানান কয়লা ভাটা মালিকেরা।

রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম পরিবর্তনকে বলেন, ‘কয়লার দাম বেশি হওয়ায় কয়লায় পোড়ানো ইটভাটা মালিকদের খরচ বেশি হচ্ছে। তবে কোনো ভাটায় কাঠ পুড়িয়ে ইট তৈরি করা হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনের আওতায় অনা হবে ভাটা মালিকদের।

এইচআর
 

আরও পড়ুন

আরও
               
         
close