সরকারের কাছে সাংবাদিকদের সুরক্ষা ও প্রণোদনা চাইলেন ফখরুল
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

সরকারের কাছে সাংবাদিকদের সুরক্ষা ও প্রণোদনা চাইলেন ফখরুল

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৫:৪৭ অপরাহ্ণ, মে ০৭, ২০২০

সরকারের কাছে সাংবাদিকদের সুরক্ষা ও প্রণোদনা চাইলেন ফখরুল
করোনাভাইরাসের এই কঠিন মুহূর্তে সংবাদ সংগ্রহের জন্য গণমাধ্যমের কর্মীদের ভূমিকার প্রশংসা করে সরকারের কাছে তাদের সুরক্ষা ও প্রণোদনা দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য পিপিই প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এই দাবি করেন। পরে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের হাতে পিপিই তুলে দেন মির্জা ফখরুল।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেখুন-যারা সাংবাদিক তারা এই মহামারীর মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সংবাদ পরিবেশ করছেন তাদের কি অবস্থা। বিভিন্ন জায়গায় অনেকেই ছাটাই হয়ে গেছেন এই দুঃসময়ে। অনেক প্রতিষ্ঠানে বেতন বন্ধ হয়ে আছে তিন মাস যাবত। সেখানে কিন্তু সরকারের কোনো প্রণোদনা নেই। এই যে সরকার ৯৫ হাজার কোটি টাকার একটা প্রণোদনা ঘোষণা করেছে যেটাকে আমরা বলেছি যে পুরোটাই শুভঙ্করের ফাঁকি। সেই প্রণোদনাতে সাংবাদিকদের কথা কিছুই বলা নেই।

তিনি আরও বলেন, আমি এই সভা থেকে আহবান জানাবো সংবাদ মাধ্যমের যারা মালিক আছেন, তারা দয়া করে সংবাদ কর্মীদেরকে বেতন পরিশোধ করবেন। কাউকে চাকুরিচ্যুত করবেন না এই দুর্দিনে এবং তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবেন। সেইসঙ্গে সরকারের প্রতি পরিস্কার আহবান, অবিলম্বে সকল গ্রেপ্তারকৃত সাংবাদিকদের মুক্তি দিন।

একইসঙ্গে রাজবন্দিদেরও মুক্তির দাবিও জানান মির্জা ফখরুল।

করোনাভাইরাস সংক্রামণে সরকারি তথ্য-উপাত্ত ‘সঠিক’ নয় দাবি করে ‘সরকার জনগনের সাথে প্রতারণা করছে’ বলে মন্তব্য করেন ফখরুল।

তিনি বলেন, আজকে সরকারের তরফ থেকে আক্রান্ত, অসুস্থ, সুস্থ এবং মৃত্যুর যে ডাটাগুলো দেয়া হচ্ছে-আমার তো মনে হয় বাংলাদেশের কোনো মানুষ তা বিশ্বাস করে না। এটা বিজ্ঞানের কথা। সংক্রমণ যখন বাড়ছে, উপর দিকে যাচ্ছে তখন মৃত্যু ২/৩/৪ এ এসে পৌঁছাচ্ছে। এটাকে কেমন সরকার বলবেন আপনারা? যাদের এতোটুকু দায়িত্ববোধ নেই। যারা চরম দুর্দিনেও জনগনকে সঠিক তথ্য দিচ্ছে না, জনগনের বিভ্রান্ত করছে, জনগনকে প্রতারণা করছে। এটা ক্রিমিনাল অফেন্স ছাড়া কী বলব আমরা?’

ফখরুল বলেন, ‘আজকে প্রশ্ন হচ্ছে জীবনের, আর এরা খুলে দিচ্ছেন শপিং মল। কেনো? ঈদের বাজার করতে হবে আর অর্থনীতিকে চালু রাখতে হবে। এতদিন কী করলেন? এই যে মধ্যম আয়ের দেশে চলে গেলেন, অর্থনীতি আপনার রোল মডেল বিশ্বের মধ্যে। কেনো বর্তমান অবস্থাকে ধারণ করার মতো শক্তি এই ইকোনমির তৈরি হয়নি? কারণ আপনারা পুরোটাই মিথ্যা কথা বলেছেন, মানুষকে প্রতারণা করেছেন, ভুল বুঝিয়েছেন।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদারের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদও বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে দলের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন নসু, নির্বাহী কমিটির সদস্য মীর হেলাল উদ্দিন, প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।

এমএইচ

 

: আরও পড়ুন

আরও