১৩ বছরে দেশকে মুমূর্ষু রোগী বানিয়ে ফেলেছে সরকার
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ২৫ মে ২০২২ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

>

১৩ বছরে দেশকে মুমূর্ষু রোগী বানিয়ে ফেলেছে সরকার

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:৫৭ অপরাহ্ণ, মে ১৩, ২০২২

১৩ বছরে দেশকে মুমূর্ষু রোগী বানিয়ে ফেলেছে সরকার
দেশের এই মুহূর্তে ‘নিরপেক্ষ নির্বাচন’ নামের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের দরকার বলে মন্তব্য করেছেন গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর।

তিনি বলেছেন, সরকার গত ১৩ বছরে বাংলাদেশকে মুমূর্ষু রোগী বানিয়ে ফেলেছে। এখন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) দেশের চিকিৎসা দরকার।

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে নুর এ কথা বলেন।

‘ভোজ্যতেলসহ দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে’ এই কর্মসূচির আয়োজন করে যুব অধিকার পরিষদ।

ডাকসুর সাবেক ভিপি বলেন, গত ছয় মাসের বাজার পরিস্থিতি বলছে, মাসে মাসে না, সপ্তাহে সপ্তাহে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়ছে। সরকার ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি। তাই ভবিষ্যতে দ্রব্যমূল্য আরও বাড়বে। মজুতদারদের বিরুদ্ধে লোকদেখানো অভিযান চালানো হচ্ছে। মানুষ খেতে পারছে না। অথচ সরকার টাকা খরচ করে এলইডি স্ক্রিন লাগিয়ে উন্নয়নের প্রচার চালাচ্ছে।

দ্রব্যের দাম কমিয়ে জনগণকে স্বস্তি না দেওয়া হলে সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে জানান নুর। স্বাধীনতার ৫০ বছরেও জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করা যায়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিকল্প শক্তির উত্থান ছাড়া জনগণের মুক্তি ও রাষ্ট্রের সংস্কার সম্ভব নয়।

নুর বলেন, আমাদের লক্ষ্য ক্ষমতায় যাওয়া নয়, এ সরকারকে হঠানো নয়, আমাদের লক্ষ্য রাষ্ট্রের কার্যকর সংস্কার। দেশকে একটি প্রকৃত রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলা। আমরা চাই একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন, দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনা।

সরকারকে উদ্দেশে ডাকসুর সাবেক ভিপি বলেন, শ্রীলঙ্কা থেকে শিক্ষা নিন। শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ভালো ছিল। সীমাহীন দুর্নীতি তাদের কোথায় নিয়ে গেছে। বাংলাদেশের নাগরিকেরাও শ্রীলঙ্কার নাগরিকদের মতো পাল্টা আঘাত করতে পারে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উদ্দেশে নুর বলেন, আপনারা কি দেখছেন না বর্তমান সরকার চারদিক থেকে কালো মেঘে আচ্ছন্ন হয়ে গেছে? এখনও আপনারা সরকারের উন্নয়নের গুণগান গেয়ে যাচ্ছেন। এখনও আপনারা বিরোধী দলের নেতাকর্মী দেখলে পেটাচ্ছেন। আপনারা কেন এ নিষেধাজ্ঞা (র্যা ব ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের) পেলেন, এটা কি জনগণের পক্ষে দাঁড়িয়ে পেয়েছেন? না কি জনগণের বিপক্ষের সরকারের পাশে দাঁড়িয়েই এ নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন আপনারা।

সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নাদিম হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক মুনতাজুল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খান, ফারুক হাসন, মাহফুজুর রহমান, সোহরাব হাসান, আবু হানিফ, যুগ্ম সদস্য সচিব আতাউল্লাহ, সাইফুল্লাহ হায়দার, মশিউর রহমান, বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের সভাপতি মুনজুর মোর্শেদ মামুন, শ্রমিক অধিকার পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান, ছাত্র অধিকার পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মোল্লা প্রমুখ।

এসবি

 

আরও পড়ুন

আরও
               
         
close