১২ ঘন্টা পর ডুবন্ত লঞ্চ থেকে একজনকে জীবিত উদ্ধার
Back to Top

ঢাকা, সোমবার, ৬ জুলাই ২০২০ | ২২ আষাঢ় ১৪২৭

১২ ঘন্টা পর ডুবন্ত লঞ্চ থেকে একজনকে জীবিত উদ্ধার

পরিবর্তন প্রতিবেদক: ১১:১০ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০২০

১২ ঘন্টা পর ডুবন্ত লঞ্চ থেকে একজনকে জীবিত উদ্ধার
বুড়িগঙ্গা নদীতে এমএল মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার দীর্ঘ ১২ ঘন্টা পর লঞ্চের ভেতর থেকে এক যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার রাত ১০টার দিকে ডুবুরিরা সুমন ব্যাপারী (৩২) নামে ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করেন।

সুমনকে মির্টফোর্ড স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ক্যাজুয়ালিটি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে মুন্সিগঞ্জের বাসিন্দা এই ব্যক্তি ঢাকার বাদামতলীতে ফলের ব্যবসা করেন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড ও নেভির কর্মকর্তারা জানান, রাতে উদ্ধার অভিযান চলাকালে ডুবুরিরা টিউবের মাধ্যমে নদীর তলদেশ থেকে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি উদ্ধারের চেষ্টা করছিলেন। এমন সময় লঞ্চটি সামান্য ভেসে ওঠার পর সুমন নামের ওই ব্যক্তি নিজের প্রচেষ্টায় বেরিয়ে আসেন এবং উদ্ধার কর্মীরা তাকে দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে নৌকায় তুলেন।

উদ্ধার কর্মীরা এ সময় বেশ উৎফুল্ল হয়ে উঠেন। তারা দ্রুত ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে লাইফ জ্যাকেটে ঢেকে এবং শরীর মেসেজ করে তার শরীর গরম করার চেষ্টা করেন। তখন সুমন চোখ মেলে তাকান। উদ্ধারকর্মীরা যখন তাকে বিভিন্ন প্রশ্ন জিজ্ঞেস করছিলেন তিনি তখন চোখের ইশারায় কথার জবাব দেয়ার চেষ্টা করছিলেন। তবে দীর্ঘ সময় পানির নিচে আটকে থাকায় তার শরীরের তাপমাত্রা নেমে গিয়েছিল।

প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর সুমনকে একটি অ্যাম্বুলেন্সে মির্টফোর্ড স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

উদ্ধারকর্মীরা ধারণা করছেন, লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার পর ওই ব্যক্তি যেখানে আটকা পড়েছিলেন সেখানে হয়তো সেভাবে পানি প্রবেশ করেনি।

উল্লেখ্য, সোমবার সকালে এমএল মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি মুন্সিগঞ্জের কাঠপট্টি এলাকা থেকে সদরঘাটের উদ্দেশে রওনা হয়। সদরঘাটের কাছেই ফরাশগঞ্জ ঘাট এলাকায় নদীতে ময়ূর-২ নামের অপর একটি বড় লঞ্চের ধাক্কায় 'মর্নিং বার্ড' লঞ্চটি ডুবে যায়।

এখন পর্যন্ত অন্তত ৩২টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আরও অনেকে এখনও নিখোঁজ আছেন। তাদের সন্ধানে উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট, নৌবাহিনীর ডুবুরি দলের সদস্য ও স্থানীয়রা।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক মো. সালেহ উদ্দিন জানান, এখন পর্যন্ত ৩২টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এরমধ্যে তিনজন শিশু, আটজন নারী ও একুশ জন পুরুষ রয়েছেন। তাদের নাম ও বিস্তারিত পরিচয় এখনও জানা যায়নি।

পিএসএস

 

: আরও পড়ুন

আরও