আমাদের বড় ধরনের মতানৈক্য নেই: শ্রিংলা
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ | ১২ মাঘ ১৪২৮

আমাদের বড় ধরনের মতানৈক্য নেই: শ্রিংলা

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৮:৪০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৭, ২০২১

আমাদের বড় ধরনের মতানৈক্য নেই: শ্রিংলা
বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অমীমাংসিত দ্বিপাক্ষিক ইস্যুগুলোতে বড় ধরনের কোন মতানৈক্য নেই, দেশ দুটি তাদের মধ্যকার সম্পর্কের ‘সোনালী অধ্যায়’ অতিবাহিত করছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা।

আজি মঙ্গলবার ঢাকার ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন তিনি।

শ্রিংলা বলেন, আমরা ইস্যুগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি। কিন্তু আমরা এতে বড় ধরনের কোন মতানৈক্য পাইনি। দু’দেশের মধ্যে শুধু সামনে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্র রয়েছে। এখন আমরা (এই ইস্যুগুলো সমাধানে) কিভাবে কাজ করতে পারি- তার উপায় খুঁজছি।

দ্বিপাক্ষিক ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে এবং ভারতের রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের ১৫ থেকে ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশে আসন্ন রাষ্ট্রীয় সফরের প্রস্তুতিতে সহায়তা করতে ভারতের পররাষ্ট্র সচিব আজ সকালে বাংলাদেশে পৌঁছেছেন।

শ্রিংলা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দেশের জনগণই তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন, তাদের রক্ত দিয়েছেন। এমন ঘটনা খুবই বিরল। আমরা আপনাদের বিজয়ে গর্বিত, আমরা আপনাদের উদযাপনে অংশ নিতে পেরে গর্বিত।

তিনি বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি গত মার্চে এখানে সফর করেছেন এবং ভারতের রাষ্ট্রপতি এ মাসেই এখানে সফরে আসার কথা রয়েছে এবং এটি একটি রেকর্ড তৈরি করবে যে একই বছরে ভারতের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী একই দেশ সফর করেছেন। 

শ্রিংলা বলেন, কোভিড অচলাবস্থার পরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি উভয়েই তাদের প্রথম সফরের গন্তব্য হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নিয়েছেন যা দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্কের সোনালী অধ্যায়ের চিত্র তুলে ধরে। 

দ্বিপক্ষীয় বৈঠক সম্পর্কে তিনি বলেন, সবুজ শক্তি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং উভয় দেশের যুব প্রজন্মের কর্মসংস্থানের সঙ্গে জড়িত অন্যান্য খাত সহ কিছু দূরদর্শী বিষয়েও তারা আলোচনা করেন। 

শ্রিংলা বলেন, দুই দেশের মধ্যে সংযোগ প্রকল্প খুব ভালো ভাবেই চলছে, ছয়টি রেল সংযোগের মধ্যে পাঁচটি ইতোমধ্যেই পুন:স্থাপিত হয়েছে এবং ষষ্ঠটি এ বছরের মধ্যেই শেষ হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সাথে ভারত পরিবেশ-বান্ধব রেলপথ এবং জলপথ সংযোগ উন্নয়ন করতে চায়। 

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সাফল্যের প্রশংসা করে বলেন, এই অর্জনে ভারতও গর্বিত। আপনাদের উন্নয়ন অংশীদার হিসেবে আমরাও গর্বিত এবং এই দৃষ্টিকোন থেকে আমরা আরো আলাপ-আলোচনা করবো।

আগামীকাল বুধবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের সৌজন্য সাক্ষাতের কথা রয়েছে, এছাড়াও ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করবেন।

 

আরও পড়ুন

আরও