ভেগান ডায়েট কী? এর সম্পর্কে জেনে নিন বিস্তারিত
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

ভেগান ডায়েট কী? এর সম্পর্কে জেনে নিন বিস্তারিত

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:৫২ অপরাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০২০

ভেগান ডায়েট কী? এর সম্পর্কে জেনে নিন বিস্তারিত
পুষ্টিবিজ্ঞানীদের অনেকের মতে, দীর্ঘজীবনের রহস্য লুকিয়ে আছে নিরামিষ খাবারের মধ্যে। আবার অনেকের মত প্রাণীজ প্রোটিন না খেলে শরীরের অনেক প্রয়োজনীয় উপাদানের ঘাটতি হয়। নিরামিষ আমিষের দ্বন্দ্ব চিরকালীন। শুধুমাত্র শাকসবজি খেলে তাদের ভেজিটেরিয়ান বলে এ কথা সবারই জানা। কিন্তু ভেগান শব্দটির সঙ্গে অনেকেরই পরিচয় নেই। ’নিরামিষাশীরা যখন প্রাণীজ সমস্ত খাবার না খান, তখন তাদের বলে ভেগান,’ অর্থাৎ শুধু মাছ মাংস নয় ভেগানরা ডিম, দুধ আর দুধের যেকোনো খাবার যেমন ছানা,দই, পনীর, সন্দেশ, রসগোল্লাও খান না। এমনকি, উল, চামড়া বা সিল্কের পোশাকও পরেন না। প্রাণী-সহ পরিবেশ বাঁচাতেই তাদের এই উদ্যোগ। আমাদের খাবার জন্যই হাঁস, মুরগি, গরু, মোষ, শূকর ইত্যাদি পালন করা হয়। এই বিষয়ে ভেগানদের মত হচ্ছে, কৃত্রিমভাবে চাষ করায় পরিবেশের ভারসাম্য বিঘ্নিত হয়।

১৯৪৪ সালে ডোনাল্ড ওয়াটসনের উদ্যোগে ভেগান সোসাইটি গড়ে ওঠে। ২০১০ থেকে ভেগান ডায়েট নিয়ে মাতামাতি শুরু হয়েছে। আমেরিকান জার্নাল অফ ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনে প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে জানা গেছে যে শাক সবজি, ফলে থাকা বিভিন্ন ফাইটোকেমিক্যালস (উদ্ভিদে থাকা বিশেষ প্রাকৃতিক রাসায়নিক যা বিভিন্ন রং ও গন্ধ সৃষ্টি করে, বিভিন্ন ফল ও সবজিতে প্রায় ৪,০০০ ফাইটোকেমিক্যালস পাওয়া যায় যা শরীরের জন্যে অত্যন্ত উপকারী, যেমন টোম্যাটো, তরমুজ, গাজর, আম, জাম, পালং শাক ইত্যাদি) শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। এই কারণেই আমেরিকা, ইউরোপের মানুষদের মধ্যে ভেগান ডায়েট ক্রমশ অত্যন্ত জনপ্রিয় হচ্ছে।

প্রচুর ভিটামিন মিনারেলস ও অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ ভেগান ডায়েট বিভিন্ন ধরনের ক্যানসার, টাইপ টু ডায়াবিটিস, হার্টের অসুখ, ওবেসিটি, হাই ব্লাড প্রেশারের মতো অসুখ প্রতিরোধ করতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিচ্ছে।

জাপান ও ইতালির বিজ্ঞানীরা গবেষণায় জেনেছেন যে, ভেগান ডায়েট সবার জন্যে উপযুক্ত নয়। বিশেষ করে প্রাণীজ প্রোটিনের অভাবে শরীরে ভিটামিন বি-১২ এর অভাবজনিত নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে বাচ্চাদের । তাই আমিষ-নিরামিষ মিলিয়ে খাওয়াই ভালো।

নিরামিষ ও ভেগান ডায়েট প্রসঙ্গে কয়েকটা ব্যাপারে গুরুত্ব দেওয়ার কথা বললেন পুষ্টিবিদরা। ভেগান ডায়েট করলে সয়াবিন খেতেই হবে। কেননা শরীরের প্রয়োজনীয় প্রায় সব কটি অ্যামাইনো অ্যাসিড (প্রোটিনের মূল উপাদান উপাদান) থাকে সয়াবিনে। কিন্তু ভিটামিন বি-১২ থাকে না।

ভেগান ডায়েটে যারা মানিয়ে নিয়েছেন, তাদের ৮৩% ভিটামিন বি-১২ এর অভাব জনিত সমস্যায় ভোগেন। তাই যারা দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার খান না, তারা অবশ্যই বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিয়ে ভিটামিন বি-১২ সাপ্লিমেন্ট খাবেন। ভিটামিন বি-১২ রক্ত তৈরি ও মস্তিষ্কের কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেয়। তাই ভেগান ডায়েট করলে অ্যানিমিয়ার পাশাপাশি স্মৃতি শক্তির ঘাটতি হতে পারে। তাই ভেগান ডায়েট করতে গেলে অবশ্যই পুষ্টি বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিতে হবে।

মাছ-মাংস থেকে একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় উপাদান ডোকোসাহেক্সায়োনিক অ্যাসিড (ডিএইচএ) পাওয়া যায়, যা আমাদের মস্তিষ্ক, রেটিনা ও স্নায়ুতন্ত্রের কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। ভেগান ডায়েটে ডিএইচএ অত্যন্ত অল্প থাকায় সাপ্লিমেন্টস নিতেই হবে। প্রস্টেট ক্যানসার প্রতিরোধ করতে ভেগান ডায়েট অত্যন্ত কার্যকর। যাদের বংশে প্রস্টেট ক্যনাসারের ইতিহাস আছে তাদের এই অসুখের একটা ঝুঁকি থেকেই যায়।

পঞ্চান্ন পেরনোর পর ভেগান ডায়েট অভ্যাস করে দেখতে পারেন। যাদের ইতিমধ্যে এই ক্যানসার হয়েছে ও চিকিৎসা চলছে তারাও পরীক্ষামূলকভাবে কিছুদিন ভেগান ডায়েট করলে নিজেই উপলব্ধি করতে পারবেন শারীরিকভাবে কতটা ভাল বোধ করছেন। তবে একথাও ভুললে চলবে না ভেগান ডায়েটে ভিটামিন ডি,ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক ও আয়রন তুলনামূলকভাবে কম থাকে, তাই সাপ্লিমেন্টস নিতে হয়। একই সঙ্গে আপনার রুচি অনুযায়ী খাবারের ব্যাপারটাও মাথায় রাখতে হবে। সুষম খাবার খেয়ে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

ওএস/ইসি

 

: আরও পড়ুন

আরও