পূজার আগে পরিষ্কার রাখুন কাচের জিনিস
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

পূজার আগে পরিষ্কার রাখুন কাচের জিনিস

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৬, ২০২১

পূজার আগে পরিষ্কার রাখুন কাচের জিনিস
কাচের আসবাবগুলো যখন নতুন থাকে, তখন তো বেশ চকচক করে, দেখতেও সুন্দর লাগে, কিন্তু একটু পুরনো হয়ে গেলেই কেমন একটু ঘোলাটে হয়ে যায়। সে হোক চশমার কাচ বা দরজা-জানলার, অথবা কনভেকশন আভেনের সামনের কাচ... সবই পরিষ্কার রাখা খুব কঠির ঝুঁকির।
সঠিক ভাবে পরিষ্কার করতে না পড়লে  ধুলো জমে নষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। পূজার সময় ঘর-বাড়ি পরিষ্কারের সাথে কাচে জিনিস পরিষ্কার করাও দরকারি।

কাচ পরিষ্কার রাখার কতগুলো সহজ উপায় আছে, সেগুলি মেনে চললেই আর এই ধরনের সমস্যার মুখোমুখি পড়তে হবে। অনেকেই বাড়ি পরিষ্কার করতে গিয়ে টিভি, কাচের জানালায় সরাসরি লিকুইড সোপ স্প্রে করে মুছে নেন। এটি না করে বরং যে কাপড় দিয়ে মুছবেন, সেখানে সোপ স্প্রে করে তা দিয়ে রাব করুন। তবে  নিয়মিত বাড়ি পরিষ্কার রাখলে পূজার আগে সমস্যায় কম পড়তে হবে।  

আমাদের অনেকের বাড়িতেই নানা রকম কাচের আসবাব থাকে, যেমন, সেন্টার টেবিল থেকে শুরু করে বুকশেলফ। কাচের আসবাব পরিষ্কার করার আগে একটা পাতলা এবং নরম সুতির পরিষ্কার শুকনো কাপড় দিয়ে আগে ধুলো ঝেড়ে নিন। এরপর কাচ পরিষ্কার করার কোনও লিকুইড আসবাবে প্রে করে নিন এবং অন্য একটি পাতলা ও নরম সুতির কাপড় মুছে নিন। মোছার সময়ে খেয়াল রাখবেন যেন স্ট্রোক একই দিকে থাকে, অর্থাৎ ঘষে-ঘষে মুছবেন না, এতে কাচে দাগ পড়তে পারে।

কাচের বাসন পরিষ্কার রাখাটা সত্যিই একটু কষ্টের। অথচ দেখুন, আজকাল বেশিরভাগ বাড়িতেই মাইক্রোওয়েভে রান্না হয়, তা না হলেও অন্তত খাবার গরম তো তাতেই হয়, ফলে সেক্ষেত্রে মাইক্রোওয়েভ সেফ কাচের বাসনই ব্যবহার করতে হয়। রেগুলার বাসন মাজার সাবান দিয়ে কিন্তু কাচের বাসন মাজবেন না। বাসন মাজার জন্য লিকুইড সোপ পাওয়া যায়। সেগুলি দিয়েই কাঁচের বাসন মাজুন। 

বাসন মাজার জন্য কখনওই খড়খড়ে কোনও স্ক্রাবার ব্যবহার করবেন না। স্পঞ্জ বা নাইলনের স্ক্রাবার ব্যবহার করুন। এতে বাসনে চিড় ধরবে না।

যেকোনো বাড়িতে যতই স্বাস্থ্যকর রান্না হোক না কেনো, তেল-মশলা ছাড়া রান্না তো আর হয় না। আর কাচের বাসনে তেল লেগে থাকে অনেক সময়েই। উষ্ণ গরম জলে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে কাচের বাসনগুলো ডুবিয়ে রাখুব কিছুক্ষন। জল যেনো খুব বেশি গরম না হয়। তা হলে কিন্তু কাচের বাসন ভেঙে যেতে পারে। এরপর লিকুইড সাবান স্পঞ্জ বা নাইলনের স্ক্রাবারে লাগিয়ে বাসন মেজে নিন এবং জল দিয়ে ধুয়ে নিন। জল ঝরে যাওয়ার সঙ্গে-সঙ্গেই পরিষ্কার কোনও নরম তোয়ালে বা সুতির কাপড় দিয়ে বাসন মুছে রেখে দিন। এতে জলের দাগ বসে যাবে না।

যদি আপনার বাড়িতে ওয়াইন গ্লাস বা অন্য কোনও পানীয়ের জন্য ব্যবহৃত কাচের গ্লাস থাকে, সেগুলো কিন্তু ভুলেও লিকুইড সাবান দিয়ে পরিষ্কার করবেন না। সামান্য ঊষ্ণ জলে পাতিলেবু স্লাইস করে কেটে রেখে দিন এবং তারপরে কাচের গ্লাস ডুবিয়ে নিন এবং জল দিয়ে ধুয়ে শুকনো নরম কাপড় দিয়ে মুছে আবার জায়গা মতো তুলে রেখে দিন। 

ভিনিগার আর জলের মিশ্রণ আর একটা শুকনো এবং নরম কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করতে পারেন আপনার কম্পিউটার স্ক্রিন। ফ্ল্যাট এলসিডি স্ক্রিনের ক্ষেত্রেও এই মিশ্রণ ব্যবহার করা যায়, অনেকে অ্যালকোহল আর জলের মিশ্রণও ব্যবহার করেন। তবে কখনওই সরাসরি স্ক্রিনের উপর কোনও তরল স্প্রে করবেন না, প্রথমে মোছার কাপড়টা ভিজিয়ে নিন, তারপর স্ক্রিন মুছে, খুব নরম হাতে মুছুন, তা না হলে কিন্তু স্ক্রিন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

টিপের আঠার দাগহীন আয়না বাঙালি ঘরে নেই বলেই চলে ৷ তার উপর, বাথরুমের আয়নায় যোগ হয় জলের দাগ, টুথপেস্টের আঁচড় বা হেয়ার স্প্রে-এর বিন্দু ৷ এই দাগ এমনই কড়া হয়ে বসে যায়, যে মাঝে মাঝে আয়নায় মুখ দেখাই দুষ্কর হয়ে পড়ে ৷ 

পুরনো খবরের কাগজ জলে ভিজিয়ে তা দিয়েও আয়না মুছে নিতে পারেন ৷ উষ্ণ জলে মিশিয়ে নিন ভিনিগার ৷ মেশাতে হবে ২:১ অনুপাতে ৷ পরিষ্কার কাপড়ে সেই মিশ্রণ লাগিয়ে আয়না মুছে নিন ৷ এই ভাবে আয়নার পাশাপাশি কাচের অন্য জিনিসও পরিষ্কার করতে পারেন ৷ 

ওএস/এসকে
 

আরও পড়ুন

আরও