পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে কঠোর আন্দোলন, শ্রমিকের মৃত্যু!
Back to Top

ঢাকা, সোমবার, ৬ জুলাই ২০২০ | ২২ আষাঢ় ১৪২৭

পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে কঠোর আন্দোলন, শ্রমিকের মৃত্যু!

মো. জামাল হোসেন,খুলনা ৭:৪২ অপরাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে কঠোর আন্দোলন, শ্রমিকের মৃত্যু!
রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল করা না হলে আমরণ অনশনসহ কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শ্রমিকরা।

মঙ্গলবার দুপুরে প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে  শ্রমিক নেতারা এ ঘোষণা দেন।

এদিকে, চাকরিচ্যুতির চিঠি দেখে আবুল কালাম নামে একজন পাটকল শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে বলে শ্রমিকরা জানিয়েছেন।

সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল চালুর সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে খুলনা অঞ্চলের ৯টি পাটকলের শ্রমিকরা নিজ নিজ মিলের সামনে এদিন দুপুর ২টা থেকে অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছেন।

বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত চলবে।

এর আগে, একই দাবিতে সোমবার  সকাল ৯ টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করে শ্রমিকরা।

দুপুরে প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সামনে অবস্থান কর্মসূচি চলাকালে পাটকল শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরকার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন না করলে আমরণ অনশনসহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। কোনো অবস্থাতেই মিল বন্ধ করতে দেয়া হবে না। তারা বিজেএমসিকে পুনর্গঠন করে মিল চালু রাখার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

বক্তৃতা করেন প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সিবিএ সভাপতি শাহানা শারমিন, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির খান, সাবেক সভাপতি কাউসার আলী মৃধা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান, সেলিম আকন, আবুল কালাম জিয়া, নূরুল হক, বেল্লাল হোসেন ও শুকুর আলী।

প্লাটিনাম জুট মিলের সিবিএ’র সভাপতি সাহানা শারমিন জানান, দাবি আদায় না হওয়ায় কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল রক্ষা সিবিএ-ননসিবিএ সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক সরদার আব্দুল হামিদ বলেন, হঠাৎ করেই মিল বন্ধ হলে হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বে। তখন পরিবার-পরিজন নিয়ে সকলকে পথে বসতে হবে।

তিনি বলেন, মিল বন্ধের এই ভ্রান্ত সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে হবে। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দেওয়া হবে।

খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত ক্রিসেন্ট, স্টার, প্লাটিনাম, ইস্টার্ন, দৌলতপুর, খালিশপুর, জেজেআই, আলিম ও কার্পেটিং জুট মিলে ৮ হাজার ১০০ স্থায়ী শ্রমিক ও প্রায় ১৫ হাজার অস্থায়ী শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন।

উল্লেখ্য, খুলনার পাটকলসহ রাষ্ট্রায়ত্ত সকল পাটকল সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে সরকার চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

 সোমবার সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত প্রেস কনফারেন্সে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

পাটকল শ্রমিকের মৃত্যু :

এদিকে আবুল কালাম (৫৭) নামে প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের এক শ্রমিক মারা গেছেন।

মিলের শ্রমিকরা জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় ফেসবুকে চাকরিচ্যুতির চিঠি দেখতে পেয়ে তিনি মাথা ঘুরে পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের তাঁত বিভাগের শ্রমিক খেলায়েত হোসেন খান জানান, সকাল সাড়ে ৯টায় আবুল কালাম ফেসবুকে দেখতে পান চাকরি ছাটাই হলে প্রথম বছরে ৪০ ভাগ, পরের বছরে ৩০ ভাগ ও তার পরের বছরে আর ৩০ভাগ টাকা পরিশোধ করা হবে। যেহেতু এর আগে অবসরে যাওয়া শ্রমিকরা এখনো টাকা পায়নি, সে কারণে তিনি হতাশ হয়ে পড়ে স্ট্রোকে আক্রান্ত হন এবং ঘটনাস্থলে মারা যান।

তিনি বলেন, আমাদের ছাটাই করা হলে আমরা টাকাও পাবো না, মিলেও ঢুকতে দেওয়া হবে না। আমরা শুভঙ্করের ফাঁকিতে পড়ব।

প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সিবিএ সভাপতি শাহানা শারমিন বলেন, চাকরি হারানোর আশঙ্কায় মিলের বেসিন বিভাগের শ্রমিক আবুল কালাম সোমবার থেকেই পরিবার-পরিজনের ভবিষ্যৎ নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় ছিলেন। মঙ্গলবার সকালে তিনি স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

শ্রমিকদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্বতা প্রকাশ করা রাজনৈতিক দল সিপিবি’র কেন্দ্রীয় নেতা এসএ রশিদ বলেন, মিল বন্ধের ঘোষণার পর থেকেই শ্রমিক আবুল কালাম টেনশন করছিলেন। এছাড়া তিনি নানাভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

এসবি

 

: আরও পড়ুন

আরও