৯৮ বছর আগের সেই লজ্জার রেকর্ড ছুঁল লিভারপুল!
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ৫ মার্চ ২০২১ | ২১ ফাল্গুন ১৪২৭

৯৮ বছর আগের সেই লজ্জার রেকর্ড ছুঁল লিভারপুল!

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২১

৯৮ বছর আগের সেই লজ্জার রেকর্ড ছুঁল লিভারপুল!
হঠাৎ কি হলো লিভারপুলের? কেন হুট করেই এমন করুণ পরিণতির অন্ধকার গলিতে তলিয়ে যাওয়া? প্রশ্নগুলো দানা বেঁধেই উঠছে। কারণ, ইয়ুর্গেন ক্লপের হাত ধরে লিভারপুল তাদের হারোনো সোনালি দিন ফিরে পেতে শুরু করেছিল। দীর্ঘ ১৪ বছর পর ২০১৮-১৯ মৌসুমে ঘরে তুলেছে বিশ্ব ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে মর্যাদা ও আকর্ষণীয় টুর্নামেন্ট উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা। দীর্ঘ ৩০ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে গত মৌসুমে (২০১৯-২০) জিতেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা। এবারও মৌসুমের শুরুটা করেছিল দারুণ। অনেকটা সময় পর্যন্ত পয়েন্ট তালিকার শীর্ষেই ছিল অল-রেডরা।

কিন্তু হঠাৎই সেই চকচকে রাস্তা হারিয়ে অন্ধকার গলির যাত্রী ক্লপের দল। ধারাবাহিক ব্যর্থতার মিছিলে গতকাল রাতে লিভারপুলকে তো গায়ে মাখতে হলো নিজেদের ৯৮ বছর আগের সেই লজ্জা। ব্যর্থতার পথ ধরে কাল মার্সিসাইড ডার্বিতে নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী এভারটনের কাছে ২-০ গোলে হেরে গেছে লিভারপুল। এ নিয়ে নিজেদের ঘরের মাঠ অ্যানফিল্ডে সর্বশেষ ৪ ম্যাচেই হারল লিভারপুল। ইংল্যান্ডের শীর্ষ লিগে লিভারপুল সর্বশেষ নিজেদের মাঠে টানা ৪ ম্যাচ হেরেছিল সেই ১৯২৩ সালের ডিসেম্বরে।

এরপর গত ৯৮ বছরে কখনোই এমন লজ্জা পেতে হয়নি অল-রেডদের। অবশেষে সেই লজ্জার রেকর্ডে ভাগ বসালো লিভারপুল। সব মিলে ইংল্যান্ডের ক্লাবগুলোর মধ্যে লিগে নিজেদের ঘরের মাঠে টানা ৪ ম্যাচ হারের লজ্জার তিলকটা সর্বশেষ গায়ে মেখেছিল এভারটন, সেটিও ৯২ বছর আগের ঘটনা। ১৯২৮-২৯ মৌসুমে সর্বশেষ ঘরের মাঠে টানা ৪ ম্যাচ হেরেছিল এভারটন। এবার সেই এভারটনই নিজেদের লজ্জার ভাগটা নগরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের গায়েও ছিটিয়ে দিলেন। যদিও লিভারপুলের গায়ে এই লজ্জাটা তাদের চেয়েও ৬ বছর আগে থেকে লেগেছিল।

ঘরের মাঠে টানা ৪ ম্যাচ হারের লজ্জা তো আছেই। কালকের হারটি হোম এবং অ্যাওয়ে মিলিয়েও টানা চতুর্থ হার লিভারপুলের। এই ৪টি হারই চলতি ফেব্রুয়ারিতে। লিভারপুল লিগে সর্বশেষ জয় পেয়েছে গত ৩১ জানুয়ারি। ওয়েস্ট হামের মাঠে গিয়ে জিতেছিল ৩-১ গোলে। এরপর এ মাসে টানা ৪টি হার ব্রাইটন, ম্যানচেস্টার সিটি, লেস্টার সিটি ও কাল এভারটনের কাছে।

এর মধ্যে ব্রাইটন, ম্যান সিটি ও কালকের এভারটনের কাছে হার ৩টি নিজেদের ঘরের মাঠ অ্যানফিল্ডে। অন্য হারটি লেস্টার সিটির মাঠে গিয়ে। নিজেদের মাঠে লিভারপুলের টানা ৪ হারের অন্য হারটি বার্নলির কাছে। ২১ জানুয়ারি বার্নলির কাছে ১-০ গোলের সেই হার দিয়েই নিজেদের মাঠে টানা হারের মিছিল শুরু করেছে লিভারপুল। এই মিছিল আরও সামনে এগোবে কিনা কে জানে! উল্লেখ্য, লিভারপুল সর্বশেষ নিজেদের ঘরের মাঠে জিতেছে গত ১৬ ডিসেম্বর, হোসে মরিনহোর টটেনহামের বিপক্ষে ২-১ গোলে। এরপর নিজেদের মাঠে টানা দুই ম্যাচে ড্র করার পর হারল টানা ৪ ম্যাচে। মানে ঘরের মাঠে টানা ৬ ম্যাচে কোনো পয়েন্ট পায়নি লিভারপুল।

ব্যর্থতার এই গল্পে কালকের হারটি এমন একটা দলের বিপক্ষে, যাদের বিপক্ষে গত ২১ বছরে কখনো হারেনি লিভারপুল! সত্যিই তাই। শুধু লিগ নয়, সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়েই নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী এভারটনের কাছে লিভারপুল সর্বশেষ হেরেছিল সেই ১৯৯৯ সালে। সেই থেকে সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এভারটনের বিপক্ষে টানা ২৪ ম্যাচ অপরাজিত থাকার অনন্য এক রেকর্ড গড়েছে লিভারপুল। কাল সেই সাফল্যের গল্পে ছেদ পড়ল লজ্জার এক রেকর্ড ছোঁয়ার মাধ্যমে!

পাশাপাশি এক সময় পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থাকা লিভারপুল এখন ছিটকে পড়েছে ৬ নম্বরে। ২৫ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট মাত্র ৪০। সমান ম্যাচে ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ম্যানচেস্টার সিটি। মানে শীর্ষে থাকা ম্যান সিটির চেয়ে ১৬ পয়েন্টে পিছিয়ে লিভারপুল। লিগ শিরোপা ধরে রাখার আর কোনো আশা অলরেডদের অবশিষ্ট নেই বললেই চলে।
উপরের তথ্যগুলোই বলছে, কতটা খারাপ সময়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে লিভারপুল। কিন্তু কেন? উত্তর খুঁজতে গেলে হয়তো অনৈক কারণই পাওয়া যাবে। তবে সবচেয়ে বড় কারণের নাম হুলো চোট। চোট যেন লিভারপুলকে চেপে ধরেছে। একের পর এক তারকা খেলোয়াড় চোটে পড়ায় একাদশ সাজাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে কোচ ক্লপকে। তবে অদৃশ্য চোটকে দায়ী করেই পাড় পাবেন না ক্লপ ও তার শিষ্যরা। বাজে ফর্ম এবং দল নির্বাচন ও কৌশলে ভুল করার দায় নিতে হবে লিভারপুলের খেলোয়াড় এবং কোচকেও।

কেআর

 

আরও পড়ুন

আরও