মা-বাবার পাশেই 'নীরবে' শায়িত ম্যারাডোনা
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১ | ১৪ মাঘ ১৪২৭

মা-বাবার পাশেই 'নীরবে' শায়িত ম্যারাডোনা

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:২০ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৭, ২০২০

মা-বাবার পাশেই 'নীরবে' শায়িত ম্যারাডোনা
বিশ্বকে স্তম্ভিত করে বুধবার বিকালে (আর্জেন্টাইন সময়) না ফেরার দেশে চলে যান ডিয়েগো আরমান্ডো ম্যারাডোনা। আর্জেন্টাইন ফুটবল কিংবদন্তির মৃত্যু সংবাদে পুরো বিশ্বে নেমে আসে শোকের ছায়া। বিশ্ববাসী সেই শোকের ঘোরে রেখেই সমাহিত হলেন ম্যারাডোনা। গতকাল বৃহস্পতিবার আর্জেন্টিনার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় অনেকটা নীরবেই সমাহিত করা হয়েছে তার মরদেহ। মা-বাবার পাশেই চিরকালীন বিছানায় শায়িত হলেন ম্যারাডোনা।

হ্যাঁ, অনেকটা নীরবেই সমাহিত করা ম্যারাডোনার নিতর দেহ। বিদায়ী ম্যারাডোনাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে নেওয়া হয়েছিল বুইয়েন্স এইরেসের প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালাসে। সেখানে তাকে দেশের সর্বোচ্চ মরণোত্তর সম্মান প্রর্দশন করা হয়। তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালাস প্রাঙ্গনে হাজির হয়েছিল লাখো মানুষ। কিন্তু লাখো মানুষ শেষ শ্রদ্ধা জানালেও ম্যারাডোনার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে অংশ নেয় মাত্র ২০-২৫! যারা সবাই ম্যারাডোনার কাছের বন্ধু ও আত্মীয়!

ম্যারাডোনার জন্ম রাজধানী বুয়েনস এইরেসের উপকূলে ভেল্লা ভিস্তায়। সেখানেই স্থানীয় সমাধিস্থলে চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন তার বাবা ডিয়েগো ম্যারাডোনা চিতোরে ও মা দালমা সালভাদোরা ফ্রান্সো। মা দালমা ফ্রান্সো মারা গেছেন ২০১১ সালে। এর ৪ বছর পর ২০১৫ সালে পরপারে পাড়ি জমান তার বাবা চিতোরে। ভেল্লা ভিস্তা সমাধিস্থলে দুজনকেই পাশাপাশি সমাহিত করা হয়। এবার তাদের ঠিক পাশেই চিরকালের জন্য শায়িত হলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার।

ম্যারাডোনার শেষকৃত্যে অংশ নিতেই প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালাস প্রাঙ্গনে হাজির হয়েছিল লাখো মানুষ। বুয়েনস এইরেসের রাস্তাতেও ছিল হাজার হাজার মানুষের ঢল। কিন্তু সেসব ভক্ত-সমর্থকদের শেষকৃত্যে অংশ নিতে দেওয়া হয়নি। নিরাপত্তার স্বার্থে তাদেরকে সমাধিস্থলের কাছেও যেতে দেওয়া হয়নি। জনতার ভিড় রুখে শুধু বন্ধু-বান্ধব এবং খুব কাছের কিছু আত্মীয় মিলেই সেরেছেন আর্জেন্টাইন ফুটবল কিংবদন্তির শেষকৃত্য। ঠিক কী কারণে বিশ্বজয় করা ম্যারাডোনার শেষকৃত্য এমন নিরবে সম্পন্ন করা হলো, তা অবশ্য জানানো হয়নি। হয়তো নিরাপত্তার স্বার্থেই চুপিসারে সারা হয়েছে কিংবদন্তি ম্যারাডোনার শেষকৃত্য।

বুধবার নিজ বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ম্যারাডোনা। কাল বিশেষ একটা কফিনে করে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালাসে। মরদেহের কফিনটি মোড়ানো ছিল আর্জেন্টিনার জাতীয় পতাকা ও ম্যারাডোনার বিশ্বখ্যাত ১০ নম্বর জার্সি দিয়ে। প্রিয় ম্যারাডোনার মরদেহ প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালাসে নেওয়া হচ্ছে, এই সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার পর দুপুরের মধ্যেই বুয়েনস এইরেসের রাস্তা লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। মিছিলে মিছিলে ভক্ত-সমর্থকেরা জড়ো হতে থাকেন প্রেসিডেন্সিয়াল ভবনের সামনে। অপেক্ষা করতে থাকেন শেষকৃত্যে অংশ নেওয়ার। কিন্তু তাদের সেই আশা পূরণ হয়নি। শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েই সন্তুষ।ট থাকতে হয়েছে।

কেআর

 

আরও পড়ুন

আরও