হ্যাটট্রিক করে কিংবদন্তি রোনাল্ডোকে পেছনে ফেললেন নেইমার
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ | ১৪ কার্তিক ১৪২৭

হ্যাটট্রিক করে কিংবদন্তি রোনাল্ডোকে পেছনে ফেললেন নেইমার

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২০

হ্যাটট্রিক করে কিংবদন্তি রোনাল্ডোকে পেছনে ফেললেন নেইমার
কিংবদন্তি রোনাল্ডো রোজারিওর চেয়ে মাত্র ১ গোলে পিছিয়ে ছিলেন। নেইমার যে স্বদেশি রোনাল্ডোকে পেছনে ফেলবেন, এটা তাই অনুমিতই ছিল। নেইমার আজ বুধবার ভোরেই (বাংলাদেশ সময়) সেই কাজটা সেরে ফেললেন। কিংবদন্তি রোনাল্ডোকে টপকে পিএসজি তারকা উঠে গেলেন ব্রাজিলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতাদের তালিকার দুই নম্বরে।

নেইমার এই কাজটা আবার করলেন হ্যাটট্রিকের মাধ্যমে। তার যে হ্যাটট্রিকের সুবাদে দুদুবার পিছিয়ে পড়েও ব্রাজিল পেয়েছে ৪-২ গোলের রোমঞ্চকর জয়। হ্যাঁ, নেইমারের হ্যাটট্রিকে চড়ে আজ ভোরে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে পেরুকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে ব্রাজিল। যে জয়ে দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বের পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষেই অবস্থান করছে ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

ম্যাচটি শুরুর আগে নেইমারের নামে পাশে ছিল ৬১ গোল। যা ব্রাজিলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় তাকে রেখেছিল ৩ নম্বরে। তার চেয়ে ১ গোল বেশি, মানে ৬২ গোল নিয়ে ২ নম্বরে ছিলেন রোনাল্ডো। আজ পেরুর মাঠে তাই নিজের এবং দলের প্রথম গোলটি করার মধ্যদিয়েই কিংবদন্তি রোনাল্ডোকে ছুঁয়ে ফেলেন নেইমার। যে গোলের মাধ্যমে নেইমার প্রথমবার পিছিয়ে পড়া ব্রাজিলকে ১-১ সমতায় ফেরান। এই গোলটি নেইমার করেন পেনাল্টি থেকে। যে পেনাল্টিটি তিনি নিজেই আদায় করেছিলেন।

এরপর আবারও পিছিয়ে পড়ে ব্রাজিল। তবে এবার ব্রাজিলকে সমতায় ফেরান রিচার্লিসন। পরেেআরও ২ গোল করে নেইমার ব্রাজিলের জয় নিশ্চিত করার পাশাপাশি পূর্ণ করেছেন হ্যাটট্রিক। পেছনে ফেলেছেন রোনাল্ডোকে। রিচার্লিসন ২-২ করার পর ৮৩ মিনিটে ব্রাজিলকে আবারও পেনাল্টি পাইয়ে দেন নেইমার। তা থেকে গোল করে ব্রাজিলকে ম্যাচে প্রথম বারের মতো এগিয়েও দেন তিনি। পাশাপাশি রোনাল্ডোকে টপকে পা রাখেন ব্রাজিলের সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকার ২ নম্বরে। এরপর ইনজুরি সময়ের চতুর্থ মিনিটে মিটিয়ে ফেলেন হ্যাটট্রিক আফসোস। যে গোলটি তাকে নিয়ে যায় ৬৪তে। দেশের হয়ে গোল করায় তার উপরে এখন কেবলই কিংবদন্তি পেলে। ব্রাজিলের বিখ্যাত হলুদ জার্সি গায়ে যিনি করেছেন ৭৭ গোল।

কিংবদন্তি পেলেকেও টপকে নেইমার যে একদিন দেশের পক্ষে সর্বোচ্চ গোলদাতার রেকর্ডটি নিজের করে নেবেন, সেটিও এক রকম নিশ্চিত। কারণ, নেইমারের বয়স সবে মাত্র ২৮। সামনে পড়ে রয়েছে আরও অনেকটা সময়। এই বয়সেই যিনি দেশের হয়ে ৬৪ গোল করে ফেললেন, আরও কয়েক বছর খেললে তিন যে পেলেকে টপকে ৮০-৯০ করে ফেলবেন, সেটি স্পষ্টই।

হ্যাঁ, সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ডটা হয়তো একদিন পেলের কাছ থেকে কেড়ে নিতে পারবেন। কিন্তু একটা জায়গায় নেইমার কখনোই পেলেকে ছুঁতে পারবেন না। দেশের হয়ে গোল করার হারে। পেলে মাত্র ৯২ ম্যাচে করেছেন ৭৭ গোল। সেখানে নেইমার এরই মধ্যে খেলে ফেলেছেন ১০৩ ম্যাচ। পেলের ৭৭ গোল ছুঁতেও তাকে আরও অন্তত ১৫-২০টি ম্যাচ খেলতে হবে।

কেআর

 

আরও পড়ুন

আরও