গর্ভাবস্থায় মায়ের বিশেষ আমল কী?
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০ | ৩০ আষাঢ় ১৪২৭

গর্ভাবস্থায় মায়ের বিশেষ আমল কী?

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৯, ২০২০

গর্ভাবস্থায় মায়ের বিশেষ আমল কী?

প্রশ্ন: আসসালামু আলাইকুম। প্রেগন্যান্সির সময় মা এবং বাচ্চার সুস্থতার জন্য বিশেষ কী কী আমল করা উত্তম জানালে উপকৃত হবো।

উত্তর: ওয়া আলাইকুমুসসালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। 

গর্ভাবস্থায় থাকাকালীন সময়টাই সওয়াব এবং ফযীলতের। একজন গর্ভবতী মায়ের যে কষ্ট সহ্য করতে হয়, সেই কষ্টের বিবরণ স্বয়ং আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারীমে দিয়েছেন। ইরশাদ হচ্ছে-

حَمَلَتْهُ أُمُّهُ وَهْنًا عَلَى وَهْنٍ

অর্থ: তার মা কষ্টের পর কষ্ট ভোগ করে তাকে গর্ভে ধারণ করে। (সূরা লুকমান: ১৪)

তাই এই সময়টা একজন মায়ের জন্যে যেমন কষ্টের, তেমনি গুরুত্বপূর্ণ ও ফযীলতের। কিন্তু গর্ভকালীন সময়ে মায়েদের জন্যে সুনির্দিষ্ট কোনো আমল নেই। তবে এটা জানা কথা যে, গর্ভাবস্থায় মায়ের চাল-চলন ও আমলের প্রভাব সন্তানের উপর পড়ে। তাই এ অবস্থায় একজন মায়ের জন্যে কিছু করণীয় পরামর্শ আকারে বলা হচ্ছে-

এক. গুনাহ বর্জন করতে হবে। বেপর্দা চলাফেরা করা যাবে না। নাটক, সিরিয়াল ইত্যাদি দেখা থেকে বিরত থাকতে হবে। আওয়াজ সংযত রাখতে হবে।

দুই. নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামায আদায় করবেন। সম্ভব হলে তাহাজ্জুদ পড়বেন। ধৈর্যধারণ করে চলবেন।

তিন. বেশি বেশি করে কুরআনুল কারীমের তিলাওয়াত ও জিকর-আজকার করুন। এই ৯ মাসে অন্তত ৯ খতম কুরআন তিলাওয়াতের চেষ্টা করুন। সম্ভব না হলে আরো কম। তবুও সবসময় একটু একটু করে হলেও তিলাওয়াত অব্যাহত রাখুন। বিশেষভাবে সূরা আলে ইমরান, সূরা ইউসুফ, সূরা মারইয়াম, সূরা লুকমান, সূরা মুহাম্মাদ এই সূরাগুলো তিলাওয়াত করবেন।

চার. অনাগত সন্তানের নেক হওয়ার জন্য, সুস্থতার জন্য সবসময় দুআ করুন। আল্লাহ তাআলা সন্তানের জন্য আমাদেরকে দুআ শিখিয়ে দিয়েছেন। দুআটি মুখস্থ করে নিতে পারেন—

رَبِّ هَبْ لِىْ مِنْ لَّدُنْكَ ذُرِّيَّةً طَيِّبَةً‌ۚ اِنَّكَ سَمِيْعُ الدُّعَآءِ

উচ্চারণ: রাব্বি হাবলী মিলাদুনকা জুররিইয়্যাতান তায়্যিবাহ, ইন্নাকা সামীউদ-দুআ।

অর্থ: হে আমার পালনকর্তা! আপনার পক্ষ থেকে আমাকে পুত-পবিত্র সন্তান দান করুন। নিশ্চয়ই আপনি প্রার্থনা শ্রবণকারী।(সূরা আলে ইমরান: ৩৮)

নেক নিয়তে পুত্র-সন্তান লাভের জন্য পড়তে পারেন—

رَبِّ هَبْ لِىْ مِنَ الصّٰلِحِيْنَ

হে আমার প্রতিপালক! আপনি আমাকে সৎকর্মশীল পুত্র সন্তান দান করুন। (সূরা আস-সাফফাত: ১০০)

তবে আল্লাহ পুত্র সন্তান দিন আর কন্যা সন্তান দিন, তাঁর ফয়সালার উপর সন্তুষ্ট থাকতে হবে। তাছাড়া কন্যা সন্তান লাভ অনেক বরকত এবং ফযিলতের।

পাঁচ. সর্বশেষ সবসময় আল্লাহ তাআলার দিকে মনোযোগী থাকবেন। তাঁর সাহায্য প্রার্থনা করবেন। তাঁর উপর ভরসা রেখে চলবেন। ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তাআলা সর্বাবস্থায় সাহায্য করবেন।

উত্তর লিখেছেন মুফতী জিয়াউর রহমান, পরিচালক-ইসলামিক ফিকহ ইন্সটিটিউটআম্বরখানা-সিলেটবাংলাদেশ।

এমএফ/

 

: আরও পড়ুন

আরও