ভিয়েনায় বন্দুক হামলায় আইএসের দায় স্বীকার
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১ | ১৪ মাঘ ১৪২৭

ভিয়েনায় বন্দুক হামলায় আইএসের দায় স্বীকার

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:২৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৪, ২০২০

ভিয়েনায় বন্দুক হামলায় আইএসের দায় স্বীকার
অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় মঙ্গলবার ৬ জায়গায় সশস্ত্র বন্দুকধারীরা গুলি চালিয়ে অন্তত ৪ জনকে হত্যা করে। এ ঘটনায় আহত হয় আরও অন্তত বেশ কয়েকজন।

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) এ হামলার দায় স্বীকার করেছে।

আইএস তাদের আমাক বার্তা সংস্থায় এক বিবৃতিতে এ হামলার দায় স্বীকার করে সঙ্গে একজন অস্ত্রধারীর ছবি ও ভিডিও দিয়েছে। এই অস্ত্রধারীই ভিয়েনায় হামলা চালিয়েছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে তারা।

টেলিগ্রামে প্রকাশিত ওই ছবিতে একজন দাড়িওয়ালা ব্যক্তিকে দেখানো হয়েছে এবং তাকে ‘আবু দাগনাহ আল-আলবানি’ বলে শনাক্ত করা হয়েছে।

সে সোমবার পুলিশের গুলিতে নিহত হওয়ার আগে ভিয়েনার কেন্দ্রস্থলে পিস্তল ও মেশিনগান নিয়ে জনতার ওপর হামলা চালিয়েছে বলে ছবির সঙ্গে থাকা বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

ছবিতে আলবানির এক হাতে একটি পিস্তল, অপর হাতে একটি মেশিনগান ও চাপাতি ধরা এবং তার আঙুলে পরা আংটিতে ‘মোহাম্মদ (সা.) আল্লাহর প্রেরিত দূত’ কথাটি লেখা আছে, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

আইএসের বিবৃতিসহ ছবি, ভিডিও প্রকাশের কয়েক মিনিট পর আমাকের পোস্ট করা আরেকটি ভিডিওতে আলবানিকে ইসলামিক স্টেটের নেতা আবু ইব্রাহিম আল হাশেমি আল কুরাইশির আনুগত্য প্রকাশ করতে দেখা গেছে। ভিডিওতে তিনি আরবিতে কথা বলছিলেন।

রয়টার্স বলছে, আলবানি বলতে সাধারণত আলবেনিয়া থেকে আসা কাউকে বোঝানো হয়। বিবৃতিতে ওই ব্যক্তির অপর কোনো নাম উল্লেখ করা হয়নি।

অস্ট্রিয়ার কর্মকর্তারা হামলাকারীকে অস্ট্রিয়া ও উত্তর মেসিডোনিয়ার দ্বৈত নাগরিক কোয়দিম ফেজুলাই বলে শনাক্ত করেছেন। আইএসে যোগ দেয়ার জন্য সিরিয়ায় যাওয়ার চেষ্টা করায় ২০১৯ সালের এপ্রিলে এই ব্যক্তিকে ২২ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল। কারাগার থেকে কয়েক মাস আগে ছাড়া পেয়েছিলেন তিনি।

ভিয়েনায় এ হামলার জন্য অন্তত একজন ‘ইসলামি সন্ত্রাসী’ দায়ী বলে মঙ্গলবার দাবি করেছেন অস্ট্রিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার।

দেশটির চ্যান্সেলর সেবাস্টিয়ান কুর্জ এ ঘটনাকে 'সন্ত্রাসী হামলা' হিসেবে বর্ণনা করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, হামলাকারীদের একজনও এ ঘটনায় নিহত হয়েছে।

পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত ১৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। হামলাকারীদের মধ্যে অন্তত একজনকে এখনও ধরা যায়নি এবং পুলিশ তার খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে বলে নেহামার জানিয়েছিলেন।

ওএস/এইচআর

 

 

আরও পড়ুন

আরও