শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার মূল আসামি বন্দুক যুদ্ধে নিহত
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০ | ২৭ আষাঢ় ১৪২৭

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার মূল আসামি বন্দুক যুদ্ধে নিহত

গাজীপুর প্রতিনিধি ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার মূল আসামি বন্দুক যুদ্ধে নিহত
গাজীপুরের টঙ্গীর মধুমিতা রেলগেইট এলাকায় র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে আবু সুফিয়ান নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। র‌্যাব জানায়, টঙ্গীর মধুমিতা রেল গেইট এলাকায় ৭ বৎসর বয়সের এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলার মূল  আসামি সে। গতরাত ১০টার দিকে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনাটি ঘটে। এসময় তিন রাউন্ড গুলি ও একটি বিদেশী অস্ত্র উদ্ধার করে র‌্যাব।

 

র‌্যাব পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, গত ১৫ মে বিকালে শিশুটি চাদনী মাঠে খেলাধুলা করতে গেলে নিলয় ও সুফিয়ান নামে দুই যুবক ভিকটিমকে চোখে চোখে রাখে। তারা শিশুটিকে কৃষ্ণচূড়া গাছ থেকে ফুল পেড়ে দেয়। এসময় গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হওয়ায় আশপাশে লোক সমাগম কম ছিলো।পরে বাসায় ফেরার পথে নিলয় ও সুফিয়ান তাকে চকলেট কিনে দেওয়ার নাম করে মধুমিতা রেলগেইট এলাকায় সজীবের ইটের স্তুপের আড়ালে নিয়ে যায়। এরপর তারা ভিকটিমের দুই হাত মুখ চেপে ধরে শিশুটিকে জোড়পূর্বক পালাক্রমে গণধর্ষন করে। পরে ধর্ষকরা তার গলা টিপে এবং দুই পায়ে আঘাত করে নির্মমভাবে হত্যা করে। পরবর্তীতে তারা লাশ ময়লার স্তুপে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

পরদিন ১৬ মে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।এঘটনায়  র‌্যাব-১ সদস্যরা নিলয় নামে এক কিশোরকে গ্রেফতার করে। তার দেওয়া তথ্য মতে গতরাত ১০ টার দিকে র‌্যাব-১ এর একটি দল টঙ্গী পূর্ব থানাধীন মধূমিতা রেলগেইট এলাকায় অপর আসামি ধরতে অভিযানে নামে। এসময় এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় সুফিয়ান। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় সুফিয়ান।

র‌্যাব আরো জানান, এ ঘটনায় র‌্যাবের এক সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

জেএ/এইচকে

 

: আরও পড়ুন

আরও