সবেচেয়ে বেশি অধিনায়কের অধীনে খেলেছেন যিনি
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

সবেচেয়ে বেশি অধিনায়কের অধীনে খেলেছেন যিনি

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০

সবেচেয়ে বেশি অধিনায়কের অধীনে খেলেছেন যিনি
ইংল্যান্ডের সবেচেয় সফল পেসার জেমস অ্যান্ডারসন এ পর্যন্ত খেলেছেন ১৫২টি টেস্টে। ১৭ বছরের দীর্ঘ এই ক্যারিয়ারে ৮ জন টেস্ট অধিনায়কের অধীনে খেলেছেন তিনি। যার সর্বশেষ সংযোজন বেন স্টোকস। তবে টেস্ট ইতিহাসে তিনিই সবচেয়ে বেশি অধিনায়কের অধীনে খেলা ক্রিকেটার নন। সবেচেয়ে বেশি অধিনায়কের অধীনে খেলা ক্রিকেটার তারই স্বদেশী ফ্র্যাঙ্ক উইলি। ৬৪ টেস্টের ক্যারিয়ারে ১৪ জন অধিনায়ককে পেয়েছেন তিনি।

এদিকে শিবনারায়ণ চন্দরপলও কম যান না। ক্যারিবিয়ান এই ব্যাটসম্যান পুরো ক্যারিয়ারে ১৩ জন অধিনায়ককে পেয়েছেন। এছাড়া মোস্তাক আহমেদ, ইনজামাম উল হক ও জ্যাক হবস খেলেছেন ১২ জন অধিনায়কের অধীনে।

সবচেয়ে কম অধিনায়কের অধীনে খেলা ক্রিকেটারের তালিকায় সবার ওপরে আছেন মার্ক টেইলর। সাবেক এই অজি অধিনায়ক ক্যারিয়ারের প্রথম ৫৪ টেস্ট খেলেছেন অ্যালান বোর্ডারের অধীনে। আর শেষ ৫০ টেস্ট খেলেছেন খোদ নিজের অধীনে। মানে নিজেই ছিলেন তখন দলের অধিনায়ক। তবে খুব শীঘ্রই টেইলরকে ধরে ফেলতে পারেন জো রুট। ইংল্যান্ডের বর্তমান এই টেস্ট অধিনায়ক এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৯২ টেস্ট। যার প্রথম ৫৩ টেস্ট খেলেছেন অ্যালিস্টার কুকের অধীনে। আর বাকিগুলোর (৩৯) অধিনায়ক তিনি নিজেই। এই সংখ্যা যে আরো বাড়বে তা বলাই বাহুল্য।

১৬৮ টেস্ট খেলা স্টিভ ওয়াহ ৬৫ টি বোর্ডারের ও ৪৬ টি খেলেছেন টেইলরের অধীনে। আর বাকি ৫৭ টেস্টে নিজেই ছিলেন অধিনায়ক। ৩ অধিনায়কের অধীনে খেলা অন্য ক্রিকেটাররা (কম পক্ষে ১০০ টেস্ট খেলা) হলেন ভিভ রিচার্ডস, গ্রায়েম স্মিথ, মাইকেল ক্লার্ক, ক্লাইভ লয়েড ও ডেভিড বুন।

এদিকে মার্ভ হিউজ তার ৫৩ টেস্টে পুরে ক্যারিয়ারে এক অ্যালান বোর্ডারের অধীনে খেলেছেন। এছাড়া ৫০ টেস্ট খেলা জিওফ মার্শও পুরো ক্যারিয়ারটা বোর্ডারের অধীনে খেলেছেন। এদের ঠিক বিপরীত অবস্থানে আছেন জর্জ হেডলি। ২২ টেস্টের ছোট্ট ক্যারিয়ারের মোট ৯ জন অধিনায়ক পেয়েছেন তিনি। মানে মানে গড়ে ২.৪৪ টেস্টে একজন করে নতুন অধিনায়ক পেয়েছেন তিনি। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদিও ক্যারিয়ারে (২৭ টেস্ট) ৯ জন অধিনায়ক পেয়েছেন। মানে প্রতি ৩ টেস্টে একজন করে নতুন অধিনায়ক ছিল তার।

এতো গেল অধিনায়কত্বের গল্প। দীর্ঘ ক্যারিয়ারের অধিনায়কত্বের স্বাদ না পাওয়ার গল্পও কম নয় ক্রিকেটে। যার শুরুর দিকেই থাকবেন অ্যান্ডারসন। আগেই বলেছি, ১৭ বছরের ১৫২ টেস্টের দীর্ঘ ক্যারিয়ারের ৮ জন অধিনায়ক পেয়েছেন তিনি। কিন্তু এত দীর্ঘ সময়েও অধিনায়কত্বের ব্যাজ ওঠেনি অভিজ্ঞ এই পেসারের হাতে। শুধু অ্যান্ডারসন নয়, অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তী লেগ স্পিনার শেন ওয়ার্নও কখনও অধিনায়ক হতে পারেননি। অথচ তার ছিল ১৪৫ টেস্টের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ার। এ ক্ষেত্রে অ্যান্ডারসনের সতীর্থ স্টুয়ার্ট ব্রড থাকবেন তিন নম্বরে। ১৩৮ টেস্ট খেলা ব্রডও সাদা পোশাকে আজ পর্যন্ত ইংলিশদের নেতৃত্ব দিতে পারেননি। এই তালিকায় আরও আছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক ভিভিএস লক্ষ্মণও (১৩৪ টেস্ট)

অধিনায়কত্বের এই পরিসংখ্যানে আছে ব্রায়ান লারার নামও। ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের এই কিংবদন্তির অধীনে মোট ৫৬ জন ক্রিকেটার খেলেছেন। সমানসংখ্যক ক্রিকেটার খেলেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক গ্রায়েম স্মিথের অধীনেও। বোর্ডারের অধীনে খেলেছেন সব মিলিয়ে ৫৫ জন ক্রিকেটার। দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক হার্বেই টেইলরের অধীনে মোট ৩৩ জন ক্রিকেটারের অভিষেক হয়েছিল। আর ভারতের সাবেক অধিনায়ক অনিল কুম্বলের অধীনে একজন ক্রিকেটারেও অভিষেক হয়নি।

পিএ

 

: আরও পড়ুন

আরও