‘বীরযোদ্ধা’ ডা. মঈনকে মাশরাফির ‘স্যালুট’
Back to Top

ঢাকা, শনিবার, ৩০ মে ২০২০ | ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

‘বীরযোদ্ধা’ ডা. মঈনকে মাশরাফির ‘স্যালুট’

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৩২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০২০

‘বীরযোদ্ধা’ ডা. মঈনকে মাশরাফির ‘স্যালুট’
মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন দেশের চিকিৎসক-নার্সরা। করোনার সাথে সম্মুখ যুদ্ধে সংক্রমিত হয়ে বুধবার সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. মঈন উদ্দিনের মৃত্যু হয়েছে। তার মৃত্যুতে গোটা জাতি শোকাহত।

সেবা দিতে গিয়ে মারা যাওয়া এই চিকিৎসকের মৃত্যুতে হৃদয় ছুঁয়ে গেছে নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজারও।

বৃহস্পতিবার ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইড পেজে এই সম্মুখসারির যোদ্ধাকে ‘স্যালুট’ জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, সবাইকে শোকে ভাসিয়ে চলে গেলেন এক মহৎ প্রাণ ডাক্তার! করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গতকাল (বুধবার) সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক মানবিক ডা. মঈন উদ্দীন চলে গেলেন না ফেরার দেশে! তিনি ছিলেন করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ফ্রন্ট লাইনের যোদ্ধা। তার এই মৃত্যু হৃদয় বিদীর্ণ করার মতো।

মাশরাফি লেখেন, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের ছোবলে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশও আক্রান্ত। দেশের এই মহাক্রান্তিকালে ডা. মঈন ছিলেন দেশের মানুষের জন্য আত্মোৎসর্গীকৃত। মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত একজন মানবসেবী হিসেবে মানুষের সেবা করে গেছেন তিনি। নিজের জীবনের সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে মানুষকে তিনি চিকিৎসাসেবা দিয়ে গেছেন।

মানুষের প্রতি, দেশের প্রতি তার এই আত্মত্যাগ শব্দ-বাক্যে প্রকাশের মতো নয়। মানবতার জয়গান গাওয়া ক্রান্তিকালের এই যোদ্ধাকে নিশ্চয় গোটা জাতি আজীবন পরম শ্রদ্ধায় স্মরণ করবে।

‘আমি তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। সবশেষে আমি এই বীরযোদ্ধাকে জানাচ্ছি- স্যালুট,’ যোগ করেন তিনি।

ডা. মঈন বুধবার সকালে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ডা. মঈন ছিলেন সিলেটের প্রথম করোনা রোগী। গত ৫ এপ্রিল তার করোনা শনাক্ত হওয়ার পর সহকর্মীদের পরামর্শে নিজ বাসায় কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসা নিতে থাকেন।

পরে তার অবস্থার অবনতি হলে দুদিন পর ৭ এপ্রিল শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি হন। সেখানেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় পরিবারের ইচ্ছায় চিকিৎসার জন্য পরের দিন ৮ এপ্রিল তাকে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেয়া হয়।

বুধবার রাত সোয়া ৮টার দিকে সিলেটের ছাতক উপজেলার নাদামপুর গ্রামে মা-বাবার কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়।

ওএস/জেডএস

 

: আরও পড়ুন

আরও