রেজিস্ট্রেশন করতে না পারায় জেএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা
Back to Top

ঢাকা, সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০ | ২৯ আষাঢ় ১৪২৭

রেজিস্ট্রেশন করতে না পারায় জেএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

চট্টগ্রাম ব্যূরো ৭:৩৪ অপরাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

রেজিস্ট্রেশন করতে না পারায় জেএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা
রেজিস্ট্রেশন করতে না পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে দুর্জয় দাশ (১৪) নামে জেএসসির এক পরীক্ষার্থী।

মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার কৈনপুরা জলদাশ পাড়ার নিজ বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

আনোয়ারা থানার ওসি দুলাল মাহমুদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ দুর্জয় দাশের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেমের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকলে কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। দুর্জয় দাশ আনোয়ারা উপজেলার কৈনপুরা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার বাবার নাম মিলন দাশ।

ওসি জানান, দুজর্য় দাশ জেএসসি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন করতে না পারায় সোমবার দিনগত রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। জন্ম নিবন্ধনে বয়স সংশোধন করতে না পারায় জেএসসির রেজিস্ট্রেশন করাতে পারেনি দুর্জয় দাশ। মঙ্গলবার তার জেএসসি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশনের শেষ দিন ছিল।

সূত্র জানায়, জেএসসি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন করার জন্য জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত), কৈনপুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয়ের প্রধান শিক্ষক ও চাতরী ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রসহ বিভিন্ন দপ্তরে ধর্ণা দিয়েছিল দুর্জয় দাশ। কিন্তু তার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন হয়নি।

দুর্জয় দাশের বাবা মিলন দাশ বলেন, দুর্জয় গত কয়েকদিন আগে কৈনপুরা উচ্চ বিদ্যালয়ে জেএসসির রেজিস্ট্রেশন করতে গিয়ে জানতে পারে জন্ম নিবন্ধন অনুযায়ী তার বয়স দু‘বছর বেশি। ফলে তার রেজিস্ট্রেশন হবে না। এটা শোনার পর সে প্রথমে চাতরী ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রে যায়।

সেখান থেকে বলা হয় স্কুল থেকে প্রত্যয়নপত্র নিয়ে আসতে। এরপর কৈনপুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট গেলে বলেন ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা তাদের বিরুদ্ধে ইউএনওর নিকট অভিযোগ করেছে। তাই তিনি নিষেধ করেছেন প্রত্যয়নপত্র না দিতে।

এরপর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার (ভারপ্রাপ্ত) আশীষ দে এর কাছে গেলে তিনি বলেন, ইউনিয়ন তথ্যসেবা কেন্দ্র থেকে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে আনতে। এভাবে এই অফিস থেকে ওই অফিসে দৌড়াদৌড়ি করে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এবং জেএসসির রেজিস্ট্রেশন করতে না পেরে দুর্জয় দাশ হতাশ হয়ে রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী এ প্রসঙ্গে বলেন, ঘটনাটা খুবই মর্মান্তিক। ছেলেটা আমার কাছে আসার পর ইউনিয়ন তথ্যসেবাকেন্দ্রে বলে দিয়েছিলাম। তারা জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে দেবে বলেছিল। এরপরও কেন সে জেএসসির রেজিস্ট্রেশন করতে পারেনি, এটা খুবই দু:খজনক।

আইকে/জেডএস

 

: আরও পড়ুন

আরও