ফাঁকা ফেনীতে সুনশান নীরবতা
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৩১ মে ২০২০ | ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ফাঁকা ফেনীতে সুনশান নীরবতা

ফেনী প্রতিনিধি ৫:৩৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৬, ২০২০

ফাঁকা ফেনীতে সুনশান নীরবতা
জেলা প্রশাসনের সহায়তায় সেনাবাহিনী ও পুলিশের কার্যক্রমে ফাঁকা হতে শুরু করেছে ফেনী। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে শহরের ট্রাংক রোড, খেজুর চত্ত্বর, দোয়েল চত্ত্বর, শহীদ মিনার এলাকা, বড় বাজার ও জেল রোডসহ বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা যায় কমতে শুরু করেছে লোক সমাগম।

ক্রমেই যেন সুনশান নীরবতায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে চিরচেনা ব্যস্ত শহরটি। ট্রাংক রোডের খেজুর চত্ত্বর ও দোয়েল চত্ত্বরে যেখানে প্রতিদিন লেগে থাকতো যানজট, সেই এলাকাগুলো এখন প্রায় জনমানব শূন্য।

করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে জেলা প্রশাসনের সহায়তায় ফেনীতে সেনাবাহিনীর সদস্যদের টহল জোরদার করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর সদস্যদের ফেনীর ট্রাংক রোড, কলেজ রোড, স্টেশন রোড, সদর হাসপাতাল মোড়, মহিপাল, সালাহ উদ্দিন মোড়সহ বিভিন্নস্থানে টহল ও জনসচেতনতায় মাইকিং করতে দেখা গেছে।

এ সময় সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে মাইকিং করা হয়। জানানো হয়- আজকের পর থেকে কেউ অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে যেতে পারবে না। সংক্রমণরোধে সকলকে সামাজিক দূরত্ব বাজায় রাখতে হবে। শুধু ওষুধের দোকান এবং অতিপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান খোলা থাকবে। এছাড়া বাকি সবকিছু বন্ধ থাকবে।

ফেনী জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, মানুষ যাতে অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হতে না পারে সেটি নিশ্চিত করতে রাস্তায় পুলিশি টহল থাকবে। অতি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে রাস্তায় পাওয়া গেলে জেল-জরিমানা করা হবে বলে জানান তিনি। সেনা বাহিনীর সাথে মাঠে আছে নির্বাহী ম্যাজিস্টেটের টহল।

ফেনীর টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে অস্থায়ী ক্যাম্প করে সেনাবাহিনীর সদস্যরা অবস্থান করছেন। ওই স্থান থেকে তারা জেলার বিভিন্ন স্পটে টহল জোরদার করবেন।

এছাড়া রাস্তার মোড়ে মোড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। জেলার উপজেলা শহরগুলোতেও বন্ধ রয়েছে দোকানপাট। সীমিত করা হয়েছে যানবহনের চলাচল।

এএএম/পিএসএস

 

: আরও পড়ুন

আরও