‘ঘটা’ করে মেয়ের বিয়ে দিলেন সিভিল সার্জন!
Back to Top

ঢাকা, শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০ | ২৬ আষাঢ় ১৪২৭

‘ঘটা’ করে মেয়ের বিয়ে দিলেন সিভিল সার্জন!

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ৫:৪২ অপরাহ্ণ, মার্চ ২০, ২০২০

‘ঘটা’ করে মেয়ের বিয়ে দিলেন সিভিল সার্জন!
করোনাভাইরাসের সচেতনতায় জনসমাগম এড়িয়ে চলার সরকারি নির্দেশনা থাকলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা সিভিল সার্জন ‘ঘটা’ করেই মেয়ের বিয়ে দিলেন।

শুক্রবার নিজের সরকারি বাসভবনে এই বিয়ে সম্পন্ন হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এদিন জুমা বাদে সদর উপজেলার চিনাইর চাপুইর গ্রামের বাসিন্দা মোশারফ হোসেন মোল্লার ছেলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মঈনুল হোসেনের সঙ্গে পারিবারিক ভাবে সিভিল সার্জন শাহ আলমের মেয়ে দন্ত চিকিৎসক শাহনিন আলমের বিয়ে সম্পন্ন হয়।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলার শহরের অবকাশ এলাকায় সিভিল সার্জন শাহ আলমের সরকারি বাসভনে সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রধান ফটকের ভেতরে ফুল দিয়ে একটি তোরণ নির্মাণ ও বাড়ির ভেতরে একটি প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছে। বাসভবনের ভেতরে একটি জায়গায় ১০টি বড় পাত্রে রান্নার কাজ চলছে।

দুপুর দুইটার দিকে জেলার সরকারি কর্মকর্তাদের ডরমেটরি সংলগ্ন নিয়াজ মুহাম্মদ ফারুকী পার্কে প্রায় আধা ঘণ্টা অবস্থান করে দেখা গেছে, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ফৌজিয়া আক্তার, চিকিৎসক সৈয়দ আরিফুল ইসলাম ও মোহিনী বেগমসহ জেলার বিভিন্ন ক্লিনিকের ডেন্টাল চিকিৎসকদের একটি দল, বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের কয়েকজন কর্মচারী, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা যোগ দেন।

পৌনে তিনটার দিকে সিভিল সার্জনের সরকারি বাসভবনে প্রধান ফটক বন্ধ করে দেওয়া হয়। শুধুমাত্র আমন্ত্রিত অতিথিরা যান। ফটকের বাইরে সিভিল সার্জন শাহ আলমের নিজের লোকজন দাঁড় করিয়ে দেন। সেখানে প্রবেশাধিকার কড়াকড়ি ছিল। অবকাশের সামনের সড়কে সারিবদ্ধ ভাবে দাঁড়ানো ছিল গাড়ি। তিনটার দিকে ফটকের বাইরে চেয়ার পেতে নিজেই বসেন সিভিল সার্জন শাহ আলম।

সিভিল সার্জন শাহ আলম সাংবাদিকদের বলেন, গত বৃহস্পতিবার মেয়ের গায়ে হলুদ ছিল। কীভাবে মেয়ের বিয়ে বন্ধ করে দেই। খুবই স্বল্প পরিসরে মেয়ের বিয়ের আয়োজন করা হয়েছে। অনেককেই নিমন্ত্রণ করতে পারিনি। 

জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন সাংবাদিকদের বলেন, বিষয়টি আমরা শুনেছি। খোঁজ নিব। কেউই জবাবদিহিতার ঊর্ধ্বে নই।

এসবি

 

: আরও পড়ুন

আরও