ছিনতাইকারীদের হামলায় যেভাবে প্রাণ হারান লিপা
Back to Top

ঢাকা, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০ | ২১ চৈত্র ১৪২৬

ছিনতাইকারীদের হামলায় যেভাবে প্রাণ হারান লিপা

পরিবর্তন প্রতিবেদক ২:০৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৫, ২০২০

ছিনতাইকারীদের হামলায় যেভাবে প্রাণ হারান লিপা

রাজধানীর মুগদায় দুই সপ্তাহ আগে ছিনতাইকারীর হামলায় তারিনা বেগম লিপা নামে এক নারীর মৃত্যুর ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

শনিবার দিনগত রাত সাড়ে ১২টায় মুগদা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন মো. মিজুয়ান মিয়া, শেখ লিটন, মো. আব্দুল মজিদ ও মো. রফিক হাওলাদার।

তাদের কাছ থেকে এক রাউন্ড গুলিসহ আগ্নেয়াস্ত্র, ২টি ছুরি, ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত ২টি প্রাইভেটকার এবং নিহত লিপার কাছ থেকে ছিনতাই করা ট্যাবটি উদ্ধার করা হয়। 

রোববার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) মো. আবদুল বাতেন।

তিনি বলেন, গ্রেফতাররা ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় প্রাইভেটকার ব্যবহার করে রিকশাযাত্রী ও পথচারীদের ব্যাগ ছিনতাই করতো। গত ২৯ ফেব্রুয়ারি ভোরে মুগদা এলাকায় তারিনা বেগম লিপাকেও ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে হামলা করেছিল তারা। সেদিন ভোর ৫টা ২০ মিনিটে খিলগাঁও ফ্লাইওভার থেকে কমলাপুর স্টেডিয়ামের মাঝামাঝি রাস্তায় অবস্থান করার সময় লিপার রিকশাকে টার্গেট করে এই ছিনতাইকারীরা।

ডিবির এই শীর্ষ কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘তারা প্রাইভেটকার নিয়ে ধীরগতিতে লিপার রিকশাকে অনুসরণ করতে থাকে। দক্ষিণ মুগদার ইউনিক বাস কাউন্টার অতিক্রম করার পরে তারা লিপার হাতে থাকা ব্যাগ ধরে হঠাৎ টান দেয়। এ সময় লিপা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রিকশা থেকে পড়ে মাথায় মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হন।’

তিনি আরো বলেন, ‘ছিনতাইকারীরা তার ব্যাগসহ একটি ট্যাব, একটি মোবাইল ও নগদ ২ হাজার টাকা নিয়ে যায়। পরে লিপার স্বামী ও ছেলে পুলিশের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক লিপাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

আবদুল বাতেন বলেন, ‘লিপার কাছ থেকে ছিনতাইয়ের পর চক্রটি টয়েনবি রোড ফকিরাপুল, মতিঝিল, মিরপুর টেকনিক্যালে আরো কয়েকটি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটায়। তারপর তারা বাসায় ফিরে যায়। চক্রটি আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র ব্যবহার করে রাজধানীর বিভিন্ন রাস্তায় রাতে ও ভোরে চলাচলকারী ব্যক্তিদের গতিরোধ করে ভয়ভীতি দেখিয়ে মালামাল নিয়ে যায়।

তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানান ডিবি কর্মকর্তা।

পিএসএস/এইচআর

 

রাজধানী: আরও পড়ুন

আরও