র‌্যাব-ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ‘ডাকাতি’ করতেন তারা
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

র‌্যাব-ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ‘ডাকাতি’ করতেন তারা

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৭:৩৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৭, ২০২১

র‌্যাব-ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ‘ডাকাতি’ করতেন তারা
ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশি সরঞ্জামসহ নয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা গুলশান বিভাগ পুলিশ। তারা হলেন— আব্দুল্লাহ আল মামুন, ইমদাদুল শরীফ, খোকন মিয়া, মাসুদুর রহমান তুহিন, মামুন সিকদার, কামাল হোসেন, ওয়াহিদুল ইসলাম, ফারুক বেপারী ও মতিউর রহমান।
গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর মতিঝিল ও মোহাম্মদপুর এলাকা হতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি ওয়ার্কিটকি, একটি ডামি পিস্তল, এক জোড়া হাতকড়া, একটি নেভি বল্টু রংয়ের ট্রাভেল ব্যাগ, দুটি ডিবি জ্যাকেট, চারটি নতুন গামছা, একটি সিলভার রংয়ের প্রাইভেটকার, একটি মাইক্রোবাস ও পাঁচ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

আজ বুধবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও ডিবি-উত্তর) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ এ তথ্য জানান। 

ডিবির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার বলেন, বেশ কয়েকটা গ্রুপ ঢাকা মহানগরী এবং আশেপাশের এলাকায় প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসযোগে র্যা ব ও ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা দিতে যাওয়া অথবা ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনকারী ব্যক্তিদেরকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নেয়। তুলে নেয়া ব্যক্তিকে কখনো সাভার-আশুলিয়া, কখনো বেড়িবাঁধ, কখনো নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জে নিয়ে ব্যাপক মারধর করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে নগদ টাকা ও ভিকটিমদের ডেবিট, ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করে হাতিয়ে নেয়।

তিনি বলেন, গ্রেপ্তাররা ব্যাংক থেকে নগদ টাকা উত্তোলনকারী ব্যক্তিদের টার্গেট করে। টার্গেট ব্যক্তিকে অনুসরণ করে সুবিধাজনক স্থানে পৌঁছার পর তাদের সাথে থাকা ডিবির জ্যাকেট পরে টার্গেট ব্যক্তির গতিরোধ করে। এসময় ওয়ার্কিটকি দেখিয়ে নিজেদেরকে ডিবি পুলিশের পরিচয়ে কোন একটা অপরাধ করার অজুহাত দেখিয়ে নগদ টাকা বহন করা ব্যক্তিকে হাতকড়া পরিয়ে তাদের নিজেদের গাড়িতে তুলে নেয়। এরপর কিছুদূর গাড়ি চালানোর পর তার কাছ থাকা টাকা পয়সা, মোবাইল ফোন ও মূল্যবান সামগ্রী ভয় দেখিয়ে কেড়ে নেয়। কখনও কখনও কাউকে কাউকে তাদের কাছে থাকা গামছা দিয়ে চোখ বেঁধে ফেলে। আবার কখনও কখনও কোন ব্যক্তি চিৎকার চেঁচামেচি করলে গামছা দিয়ে গলায় ফাঁস দেয়।

জনগণের উদ্দেশে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, আপনারদের যদি কেউ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তাদের সাথে যেতে বলে তাহলে আপনারা যাচাই না করে তাদের সাথে যাবেন না। এ ধরনের ঘটনার শিকার হলে নিকটস্থ থানায় অথবা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ অবহিত করবেন।

সরাসরি মহানগর গোয়েন্দা অফিসে এসে কেউ অভিযোগ করলেও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় ডাকাতি ও মাদকের পৃথক মামলা হয়েছে।

এসবি
 

আরও পড়ুন

আরও