সোনালী ব্যাংকের বার্ষিক হিসাব ৮ ঘণ্টায় শেষ
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ২৫ মে ২০২২ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

>

সোনালী ব্যাংকের বার্ষিক হিসাব ৮ ঘণ্টায় শেষ

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১:২৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

সোনালী ব্যাংকের বার্ষিক হিসাব ৮ ঘণ্টায় শেষ
সোনালী ব্যাংক লিমিটেড ও ইন্টালেক্ট ডিজাইন এ্যারেনা লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় আর্থিক প্রযুক্তি সল্যুশন প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান সোনালী ইন্টালেক্ট লিমিটেডের সহায়তায় সোনালী ব্যাংক একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক অর্জন করেছে।

২ কোটিরও বেশি গ্রাহকের ব্যাংকটি এ বছর মাত্র ৮ ঘণ্টার মধ্যে ‘ক্লোজিং ইয়ার এন্ড’ অর্থাৎ ব্যাংকের অর্থ বছরের হিসাব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে।

সোনালী ইন্টালেক্ট লিমিটেড সোনালী ব্যাংকের প্রথাগত ব্যাংকিং সেবাগুলোকে আলাদা আলাদা ভেন্ডরের মাধ্যমে প্রদানের পরিবর্তে কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত ইন্টালেক্ট ‘কোর ব্যাংকিং ‘প্ল্যাটফর্মে রূপান্তরিত করেছে।

এর ফলে ব্যাংকটি জিরো ডাউনটাইম-এ অর্থাৎ নিরবচ্ছিন্নভাবে গ্রাহকদের আন্তর্জাতিক মানের ব্যাংকিং সেবা প্রদান করতে সক্ষম হচ্ছে। ২ কোটিরও বেশি গ্রাহকের হিসাব ও তথ্য সম্বলিত একটি ব্যাংকের ‘ক্লোজিং ইয়ার এন্ড’ প্রক্রিয়া মাত্র ৮ ঘণ্টার মধ্যে সম্পন্ন করা ব্যাংকিং ইতিহাসে এই প্রথম।

সোনালী ইন্টালেক্ট এই মুহূর্তে ২ কোটি ৮ লাখ ৯১ হাজার ৫৯৩ জন গ্রাহকের ১ কোটি ৯২ লাখ ৭৩ হাজার ৬০৭টি অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করছে। গত বছর এই হিসাব-নিকাশ সম্পন্ন হতে সময় লেগেছিল ৮ ঘণ্টা ১৭ মিনিট এবং ২০১৮ সালে সময় লেগেছিল ১১ ঘণ্টা ২৮ মিনিট।

সোনালী ইন্টালেক্ট লিমিটেড বিএফএসআই-এর একটি শীর্ষস্থানীয় ভেন্ডর যার বাংলাদেশে একটি স্থানীয় উন্নয়ন কেন্দ্র রয়েছে। এই ডেভেলপমেন্ট সেন্টার এদেশের ব্যাংকিং খাতে অত্যাধুনিক ও বিশ্বমানের প্রযুক্তি প্রদান করে আসছে। ইন্টালেক্টের স্থানীয় উন্নয়ন ও সহায়তা কেন্দ্রের মাধ্যমে তৈরি ইন্টালেক্ট সিবিএস সম্পূর্ণরূপে বাংলাদেশের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

ইন্টালেক্টের কোর ব্যাংকিং সফটওয়্যার (সিবিএস) বাস্তবায়ন সোনালী ব্যাংকের ‘প্রাইমারি ব্যাংকার’ ভিশন অর্জনের একটি অন্যতম মাইলফলক। দ্রুততার সাথে নতুন প্রোডাক্ট চালু করার ফলে ব্যাংকের গ্রাহকসংখ্যাও দ্রুত ও ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই প্রযুক্তি রুপান্তরের উদ্যোগ সোনালী ব্যাংককে দেশের বেসরকারি ব্যাংকগুলোর সমপর্যায়ে আসতে সহায়তা করার পাশাপাশি বিদ্যমান গ্রাহকদের আরো দক্ষতার সাথে সেবা দিতেও সহায়তা করেছে।

২০১৪ সালে সোনালী ব্যাংক তাদের ১২০টি শাখাতে সিবিএস সিস্টেম যুক্ত করার মাধ্যমে শুরু করে এবং ২০১৭ সালে তাদের সর্বমোট ১২০৯ টি শাখাতেই সফলভাবে সোনালী ইন্টেলেক্ট এর মাধ্যমে ‘ইন্টেলেক্ট সিবিএস’ সিস্টেম বাস্তবায়ন করা হয়। এরপর সোনালী ব্যাংক আরো ১৬টি শাখায় সিবিএস সিস্টেম যুক্ত করে।

দেশব্যাপী সোনালী ব্যাংকের ১২২৫টি শাখা রয়েছে যেগুলোতে সেন্ট্রালাইজড অনলাইন, রিয়েল টাইম ব্যাংকিংসহ সিবিএস সিস্টেম পুরোদমে চালু আছে। ফলে গ্রাহকরা উন্নতমানের ব্যাংকিং সেবা পাচ্ছেন।

এই অর্জন সম্পর্কে সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আতাউর রহমান প্রধান বলেন, “ইন্টালেক্ট-এর সিবিএস সেবা বাস্তবায়ন করার ফলে প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা বৃদ্ধি ও গ্রাহকসেবার মানোন্নয়ন, এই দুটি লক্ষ্যই অর্জন করা সহজ হয়েছে। আমরা এই উল্লেখযোগ্য মাইলফলক অর্জন করতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত। আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ইন্টালেক্ট-এর ঢাকায় সক্রিয় উপস্থিতি থাকার ফলে আমরা তাদের সহায়তায় গ্রাহকদের নিরবচ্ছিন্নভাবে সর্বাধুনিক ও বিশ্বমানের ডিজিটাল সেবা প্রদান করতে পারছি।”

সোনালী ইন্টালেক্ট লিমিটেডের পরিচালক বানেশ প্রভু বলেন, “বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত উল্লেখযোগ্য প্রযুক্তিগত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সোনালী ইন্টালেক্ট লিমিটেড বাংলাদেশ ও বিশ্বব্যাপী সেই পরিবর্তনের সাথে তাল মেলাতে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিশ্বমানের ব্যাংকিং সল্যুশন সরবরাহ করছে। ব্যাংকারদের দ্বারা বিশেষভাবে ডিজাইনকৃত ইন্টালেক্ট® সিবিএস একটি অত্যন্ত কার্যকর কোর ব্যাংকিং প্ল্যাটফর্ম যা ব্যাংকের অর্থ বছরের হিসাব প্রক্রিয়া ৮ ঘন্টায় সম্পন্ন করার মতো মাইলফলক অর্জন করতে সহায়তা করেছে। সোনালী ব্যাংক জিরো ডাউনটাইমের মাধ্যমে ব্যাংকিং সেবাকে আরও গতিশীল ও স্বাচ্ছন্দ্যময় করার মাধ্যমে গ্রাহকদের জন্য আরও চমৎকার অনলাইন অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করেছে।”

এফএ

 

আরও পড়ুন

আরও
               
         
close