আজ কবি ও গীতিকার রজনীকান্ত সেনের মৃত্যুবার্ষিকী
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১১ আশ্বিন ১৪২৮

আজ কবি ও গীতিকার রজনীকান্ত সেনের মৃত্যুবার্ষিকী

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:০১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১

আজ কবি ও গীতিকার রজনীকান্ত সেনের মৃত্যুবার্ষিকী
প্রবাদপ্রতীম কবি ও গীতিকার রজনীকান্ত সেনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ। বিশ শতকের বাংলা গানের পথিকৃৎ রজনীকান্ত সেন মাত্র ৪৫ বছর বয়সে কলকাতা মেডিকেল কলেজের কটেজ ওয়ার্ডে ১৯১০ সালের আজকের দিনে মৃত্যুবরণ করেছিলেন।
বাংলা সাহিত্যের দিকপাল পঞ্চকবির অন্যতম রজনীকান্ত ১৮৬৫ সালের ২৬ জুলাই  বৃহত্তর পাবনা জেলার সেন ভাঙাবাড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কালের প্রবাহে নিজ গ্রামে কবির পৈতৃক ভিটেমাটি হয়েছে বেদখল। নতুন প্রজন্মের কাছে বিস্মৃতপ্রায়, স্বদেশী আন্দোলনে অবদান রাখা এই কবির স্মৃতি ধরে রাখতে পূর্ণাঙ্গ ইনস্টিটিউটের দাবী স্থানীয়দের।

বাবা গুরুপ্রসাদ ছিলেন কীর্তন ও গীতিকাব্যের রচয়িতা। পনেরো বছর বয়সে রজনীকান্ত কালী সংগীত রচনা করেন। পারিবারিক অনুকূল পরিবেশে এ সময় থেকেই তাঁর কবি প্রতিভার বিকাশ ঘটতে থাকে। কর্মজীবনে তিনি ছিলেন আইনজীবী। কাজ করতেন রাজশাহী কোর্টে। রাজশাহীতে থাকাকালীন বিশিষ্ট ইতিহাসবেত্তা অক্ষয়কুমার মৈত্রের বাড়িতে বিখ্যাত কবি ও গীতিকার দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের সাথে পরিচয় হয় রজনীকান্তের। দ্বীজেন্দ্রলালের কণ্ঠে হাসির গান শুনে হাসির গান রচনায় অনুপ্রাণিত হন রজনীকান্ত। এই বাড়িতেই গানের আসরে তিনি স্বরচিত গান গেয়েছেন।

রজনীকান্তের কবিতা ও গানের মূল বিষয়বস্তু স্বদেশপ্রেম ও ভক্তি। স্বদেশের প্রতি তার প্রেম কোমল আর স্নিগ্ধ। আর তার ভক্তিগীতি কেবল রবীন্দ্র সংগীতের সঙ্গেই তুলনীয়। তার বিখ্যাত গান ‘মায়ের দেওয়া মোটা কাপড় মাথায় তুলে নেরে ভাই, দিন দুখিনী মা যে তোদের তার বেশি আর সাধ্য নাই’ বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছিল।

রজনীকান্ত রচিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য নীতি কবিতা ‘অমৃত ও সদ্ভাবকুসুম’ এবং সংগীত সংকলন ‘কল্যাণী’, ‘আনন্দময়ী’, ‘বিশ্রাম’, ‘অভয়া’, ‘মেষ দান’ ইত্যাদি। 

ক্যান্সারের মতো দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েও ঈশ্বরের প্রতি নিজেকে সমর্পণ করে দিয়ে যেসব অশ্রুতপূর্ব গান রচনা, সেগুলোই ছিল তার শেষ দিনগুলোর অনিঃশেষ প্রাণশক্তির উৎস।

এসকে
 

আরও পড়ুন

আরও