নীরবের মুক্তি চেয়ে স্ত্রীর লাবণ্যর আহাজারি
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২১ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

নীরবের মুক্তি চেয়ে স্ত্রীর লাবণ্যর আহাজারি

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৫৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২১

নীরবের মুক্তি চেয়ে স্ত্রীর লাবণ্যর আহাজারি
'কেন চলে গেলেন নিয়াকে একা ফেলে? আপনি তো জানেন আপনার হাতের ওপর ছাড়া ওর ঘুম আসে না! আমাকে আর নিয়াকে কার কাছে রেখে গেলেন নীরব?' এভাবেই নিজের আবেগ প্রকাশ করেছেন আরজে নীরবের স্ত্রী অভিনেত্রী লাবণ্য লিজা।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকেল ৪টায় আরজে নীরবের মুক্তির দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সামনে মানববন্ধন করেছেন তার সহপাঠী, সহকর্মী ও পরিবারের সদস্যরা। তাদের দাবি- প্রতিষ্ঠানের অন্যায়ের দায় মালিকপক্ষের, বেতনভুক্ত কর্মচারীর নয়। সেখানে নীরবের নিঃশর্ত মুক্তি চান তার স্ত্রী।

তিনি বলেন, 'আমি নীরবের সহধর্মিণী হিসেবে জানি, নীরব মালিকপক্ষের সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত না। আমরা যারা মিডিয়ায় কাজ করি তারা বিভিন্ন জিনিসের প্রচার-প্রচারণা করেই আমাদের পেট চালাই। এই কাজ না করলে আমাদের না খেয়ে থাকতে হবে। আমি নীরবের নিঃশর্ত মুক্তি চাই।'

এদিকে নীরবের তিন বছরের মাসুম বাচ্চা বাবাকে দেখতে না পেয়ে কান্নাকাটি করে। বাবার মুক্তির দাবিতে সেও মানববন্ধনে উপস্থিত ছিল। তার আকুতি, 'আমি পাপ্পাকে চাই।'

মেয়ের এমন কষ্টে মা লাবণ্য জানিয়েছেন, 'আমার এই মাসুম অবুঝ মেয়ের চোখের পানির মূল্য কী তোমার কাছে নেই আল্লাহ? আমার মেয়েটাকে তুমি আর কষ্ট দিও না। প্রতিটা রাত সে জেগে জেগে পাপ্পার সঙ্গে কথা বলে, পাপ্পা তুমি আসো।'

এর আগে গেল ৯ অক্টোবর মধ্যরাতে নীরবের সঙ্গে তোলা একটি ছবি ফেসবুক প্রোফাইলে দিয়ে আবেগঘন ক্যাপশনে লাবণ্য লিজা লিখেছেন, 'তোমাকে নিয়ে আমি গর্বিত, আরও বেশি হব। এই অন্ধকার কেটে যাবে ইনশাআল্লাহ। অন্য সবার থেকে আমি ভালো করে জানি, তুমি দোষী নও। তুমি সবসময় তোমার সাধ্যের বাইরেও মানুষকে সাহায্য করেছ। তুমি কখনো কাউকে আঘাত করার কথা ভাবতেও পারো না। কিন্তু আমি ভালো করে চিনতেছি, কে আমাদের বন্ধু আর কে শত্রু।'

প্রসঙ্গত, কয়েক মাস আগে আরজে পেশা ছেড়ে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান কিউকমে যোগদান করেন আরজে নীরব। গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির জনসংযোগ বিভাগের প্রধান কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির নীরবকে (আরজে নীরব) গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তেজগাঁও বিভাগ। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন।

ইসি 
 

আরও পড়ুন

আরও